নয়াদিল্লি: করোনার সঙ্গে লড়াই জারি আছে। কতদিন জারি থাকবে জানা নেই। তবে, অদৃশ্য সেই শত্রুর সঙ্গে লড়তে সবরকমের প্রস্তুতি চলছে। কোথাও তৈরু হচ্ছে ভ্যাক্সিন, কোথাও তৈরি হচ্ছে টেস্ট কিট। এবার এক ভারতীয় গবেষক তৈরি করলেন করোনা পরীক্ষার এক বিশেষ পদ্ধতি।

মাত্র ১০ মিনিটেই বোঝা যাবে ভাইরাসের উপস্থিতি। এরকমই এক পদ্ধতি তৈরি করেছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন বিজ্ঞানী।

ইউনিভার্সিটি অফ মেরিল্যান্ডের স্কুল অফ মেডিসিনের একদল গবেষক কাজ করছেন ওই পদ্ধতি নিয়ে। ওই পদ্ধতি ভাইরাসের উপস্থিতি কার্যত চোখে দেখা যাবে। প্লাজমোনিক গোল্ড ন্যানোপার্টিকল ব্যবহার করা হচ্ছে যাতে ভাইরাসের উপস্থিতিতে রঙ পরিবর্তন হয়ে যায়।

এর জন্য কোনও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে না। ডায়গানোস্টিক রেডিওলজির অধ্যাপক দীপাঞ্জন পান বলেন, ‘প্রাথমিক রেজাল্ট থেকে মনে করা হচ্ছে ইনফেকশনের প্রথম দিনেই ভাইরাসের উপস্থিতি ধরে ফেলা সম্ভব। তবে এই ব্যাপারে আরও গবেষণার প্রয়োজন আছে।’

লালারসের নমুনা সংগ্রহ করার পর ১০ মিনিটের মধ্যে ফলাফল এসে যাবে। এক বিশেষ প্রোটিনের ভিত্তিতে এই ফলাফল আসে। ওই প্রোটিনের উপস্থিত কেবলমাত্র করোনা ভাইরাস থাকলেই পাওয়া যায়। ভাইরাস উপস্থিত থাকলে ওই গোল্ড ন্যানোপার্টিলটি লিকুইড রিএজেন্টকে বেগুনি থেক নীলে পরিণত করে।

তিনি আরও বলেন, এক্ষেত্রে ফলাফল একেবারে সঠিক আসে। ভুল রেজাল্ট সাধারণত দেয় না। বর্তমানে বাজারে এমন পদ্ধতি রয়েছে, যা ইনফেকশনের অনেক পরে ফলাফল দিতে পারে। শীঘ্রই আমেরিকার ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন তিনি, যাতে দ্রুত এই পদ্ধতির পরীক্ষা শুরু করা যায়।

এদিকে, মার্কিন ওষুধ সংস্থা Pfizer দাবি করছে, এই বছরের অক্টোবরের শেষে ‌ করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক টিকা এসে যাবে। এই ওষুধ সংস্থাটি জার্মান সংস্থা BioNTech এর সঙ্গে ইউরোপ এবং আমেরিকায় সম্ভাব্য প্রতিষেধক টিকা নিয়ে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালাচ্ছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ