নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: আবহাওয়া দফতরের সতর্কতা মতোই সকাল সাড়ে নটার মধ্যে সামুদ্রিক ঘুর্ণিঝড় ফণী আছড়ে পড়েছে ওড়িশ্যা উপকূলে৷ ঝড়ের পাশাপাশি পুরীতে প্রবল বৃষ্টি৷ কার্যত লন্ডভন্ড ওডিশা৷ সবথেকে ক্ষতিগ্রস্ত ওডিশার গঞ্জাম জেলা৷ ১৫০-১৬০ কিমি গতিবেগের এই ঝড়ে ওডিশার উপকূলবর্তী অঞ্চলে কতটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা নির্ধারণের জন্য নজরদারী চালাবে ভারতীয় নৌসেনার পি-৮১ এবং ডরনিয়ার বিমান৷

ওডিশায় ফণীর গতিবেগ ১৭৫-১৯৫ কিমি৷ পুরীর পর এবার দূঘাগামী ট্রেনও বাতিল করা হল৷ সবথেকে ক্ষতিগ্রস্ত ওডিশার গঞ্জাম জেলা৷ পাশাপাশি গজপতিও ক্ষতিগ্রস্ত৷ কাতারে কাতারে মানুষ ত্রাণশিবিরে প্রবেশ করছে৷ আগামিকাল এই রাজ্যে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনা বাড়তে পারে৷ বাতিল হাওড়া-দীঘা সুপার এক্সপ্রেস৷ এখনও পর্যন্ত ২৩৩ ট্রেন বাতিল করা হয়েছে৷ ক্যুইক রেসপন্স টিম প্রস্তুত রেখেছে রেল৷

প্রতীকী ছবি

আমেরিকায় তৈরি বোয়িং পি ৮১ পোসেডন মূলত ব্যবহৃত হয়ে সমুদ্রে নজরদারি করার জন্য৷ বেআইনি পথে এদেশর সীমান্তে ঢুকে পরা যে কোনও জাহাজের উপর লক্ষ্য রাখে ভারতীয় নৌ সেনার এই যুদ্ধ বিমান এবার সেই বিমানকেই ফণী পরবর্তী উপকূলবর্তী ক্ষয়ক্ষতি নির্ধারণের জন্য তৈরি রেখেছে ভারতীয় নৌসেনা৷ বিশাল এলাকা জুড়ে নজরদারি চালিয়ে যাবে পি ৮১ যুদ্ধ বিমান৷ সাগরের জলের নীচে ডুবে থাকা জাহাজই হোক বা ভাসমান, কোনও কিছুই এর নজর এড়িয়ে যেতে পারে না৷

পি-৮১ যুদ্ধ বিমানে রয়েছে উন্নত মানের সার্ভাল্যান্স সিস্টেম ও রডার৷ যা কিনা যে কোনও আবহাওয়ায় রাত দিন তথ্য সংগ্রহ করতে পারে৷ পি ৮১ মূলত ৭৩৭ থেকে ৮০০ যাত্রীবাহি বোয়িং বিমানের ওপর ভিত্তি করে তৈরি৷ আটজন ক্রু মেম্বার এটি পরিচালনার দায়িত্বে থাকেন৷

পি ৮১ আকাশ পথে ৯০৭ কিমি প্রতি ঘন্টার গতিবেগে ১২০০ নটিকাল মাইল উড়ে বেড়ায়৷ ফলে খুব সহজে বহু দূরের সীমারেখাকেও নজরবন্দি রাখতে সক্ষম৷ উড়ন্ত অবস্থায় রি ফুয়েলিং করিয়ে এর নজরদারির এলাকা আরও বাড়ানো যায়৷ উড়তে উড়তেই ইন্ডিয়ান নেভির সব কটি সাবমেরিনের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলতে পারে৷ এতে থাকা এপি ১০ রডার খুব সহজে শত শত কিলোমিটার দূরে নজর রাখতে পারে৷