নয়াদিল্লি: দেশের নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কোন রকম ঝুঁকি নিতে রাজি নয় প্রশাসন। আর সেই কারণেই নেভি কর্মীদের সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার থেকে শুরু করে ন্যাভাল বেসে ফোন ব্যবহারের উপরে চাপাল নিষেধাজ্ঞা। এর আগেই চরবৃত্তির অভিযোগ থাকার কারণে অন্ধ্রপ্রদেশ পুলিশ সাতজন নৌবাহিনীর অফিসারকে গ্রেফতার করেছে।

এছাড়া নৌ বাহিনীর গোয়েন্দা বিভাগের তদন্তের ভিত্তিতে উঠে এসেছে এই অপরাধের শিকড় রয়েছে অনেক ভেতর পর্যন্ত। আর সেই কারণেই নৌবাহিনীর তরফ থেকে এইরকম সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

পুলিশের তরফ থেকে জানা গিয়েছে গ্রেফতার হওয়া অফিসারদের সঙ্গে পাকিস্তানি গুপ্ত সংস্থার যোগাযোগ রয়েছে। তদন্ত করতে গিয়ে গোয়েন্দারা এক হাওয়ালা চক্রের সন্ধান পেয়েছিলেন যারা দুবাই মডিউলের সঙ্গে যোগ রাখে। তারপরে তদন্ত করতে গিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্যপ্রমান নিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছিল ওই সাত আধিকারিককে।

আরও পড়ুন – মমতাকে বাংলাদেশে চলে যাবার পরামর্শ বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের

গ্রেফতার হওয়া অফিসারদের থেকে জানা গিয়েছে ফেসবুকে এক মহালির সঙ্গে তাঁদের আলাপ হয়েছিল। তারপর তাঁদের মধ্যর কথা বার্তা সামনে আনার হুমকি দেওয়াতে ওই মহিলাদের কথা মত তারা নৌবাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ তথ্য তাঁদের দিয়ে দিত।

অভিযুক্তদের মধ্যে তিনজন ইন্টার্ন ন্যাভাল কম্যান্ডের তিনজন ওয়েস্টার্ন ন্যাভাল কম্যান্ডের এবং একজন কারওয়া ন্যাভাল বেসে করমরত ছিলেন। জানা গিয়েছে অনেক শীর্ষ আধিকারিকেরা শিকার হয়েছে এই হানী ট্র্যাপের।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I