আন্তের্প: গ্রেট ব্রিটেনকে ৩-২ গোলে হারিয়ে ইউরোপ ট্যুর শেষ করল ভারতীয় হকি দল। সবচেয়ে বড় কথা লকডাউন পরবর্তী সময় প্রথম আন্তর্জাতিক ট্যুরে অপরাজিত রইল হরমনপ্রীত অ্যান্ড কোম্পানি। ইউরোপ ট্যুরের প্রথম ম্যাচে জার্মানিকে তাদের ডেরায় ৬-১ বিধ্বস্ত করার পর দ্বিতীয় ম্যাচে ১-১ ড্র করে মেন ইন ব্লু। এরপর গ্রেট ব্রিটেনের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচ ড্র করার পর সোমবার উত্তেজক ম্যাচে ৩-২ ব্যবধানে জিতে মাঠ ছাড়ে ভারতীয় দল।

ভারতের হয়ে এদিন জোড়া গোল স্ট্রাইকার মনদীপ সিং’য়ের। একটি গোল সহ-অধিনায়ক হরমনপ্রীত সিং’য়ের। ম্যাচ শেষ হওয়ার এক মিনিট আগে গোল করে দলকে থ্রিলার জয় এনে দেন মনদীপ। এদিন গ্রেট ব্রিটেনের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় ম্যাচ আক্রমণে ঝড় তুলে শুরু করে ভারতীয় দল। প্রথম মিনিটেই তারা পেনাল্টি কর্নার আদায় করে নেয় এবং সেই পেনাল্টি কর্নার থেকে গোল করে শুরুতেই দলকে এগিয়ে দেন সহ-অধিনায়ক হরমনপ্রীত। প্রথম কোয়ার্টারে এগিয়ে থেকে শেষ করলেও দ্বিতীয় কোয়ার্টারে ম্যাচে সমতায় ফেরে গ্রেট ব্রিটেন।

২০ মিনিটে মিডফিল্ডার জেমস গল ফিল্ড গোলে সমতায় ফেরান দলকে। আর এরপরেই ম্যাচের রাশ দখলে নিয়ে নেয় গ্রেট ব্রিটেন। তবে পিআর শ্রীজেশ ত্রাতা হয়ে দাঁড়ান ভারতের জন্য। পালটা ফের একটি পেনাল্টি কর্নারের ফায়দা তুলে ম্যাচে এগিয়ে যায় ভারতীয় দল। ২৮ মিনিটে পেনাল্টি কর্নারটি প্রাথমিকভাবে প্রতিহত হলেও ফিরতি বল জালে রাখেন স্ট্রাইকার মনদীপ। ২-১ এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় ভারত। বিরতির পর তৃতীয় কোয়ার্টারে ম্যাচের ফলাফল অপরিবর্তিত থাকে। যদিও তৃতীয় কোয়ার্টারে বেশ কিছু আক্রমণ শানিয়েছিল ভারতীয় দল।

অন্তিম কোয়ার্টারে আধিপত্য নিয়ে খেলা শুরু করে ভারতীয় দল। কিন্তু ৫৫ মিনিটে খেলার গতির কিছুটা বিরুদ্ধে গিয়ে সুযোগের সদ্ব্যবহার করে গ্রেট ব্রিটেন। তাঁদের হয়ে ম্যাচে সমতা ফেরান অ্যালান ফরসিথ। শেষের কয়েমিনিট উত্তেজনা আরও বেড়ে যায় ম্যাচে। গ্রেট ব্রিটেনের গোল শোধের তিন মিনিট পর ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় গোল করে নায়ক বনে যান মনদীপ সিং। বাকি সামান্য সময়ে চেষ্টা করেও আর কোনও লাভ হয়নি ভারতের প্রতিপক্ষের। ৩-২ থ্রিলার ম্যাচ জয়ের সঙ্গে সঙ্গে লকডাউন পরবর্তী প্রথম অ্যাসাইনমেন্টে লেটার মার্কস নিয়ে উত্তীর্ণ মেন ইন ব্লু।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।