নয়াদিল্লি: ভারতের অর্থনীতি ২০১৮-১৯ সালে বৃদ্ধি হবে ৭-৭.৫% ৷ সোমবার বাজেট অধিবেশনের প্রথমদিনে বেশ করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি পেশ করা অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০১৭-১৮ এমনটাই আশা করছে ৷ অর্থমন্ত্রকের মুখ্য অর্থনৈতিক উপদেষ্টা অরবিন্দ সুব্রাহ্মনিয়ানের করা এই সমীক্ষা জানিয়েছে , ২০১৭-১৮ সালে অর্থনৈতিক বৃদ্ধি হতে পারে ৬.৭৫ শতাংশ যেখানে সিএসও হিসেব করেছিল ৬.৫ শতাংশ৷

সমীক্ষা তুলে ধরেছে ২০১৭ সালের ১জুলাই পণ্য পরিষেবা করের ফলে চালু করার ফলে দু’রকম ব্যালান্স শিট সমস্যা দেখা দেওয়ার পাশাপাশি দেউলিয়া আইন সংস্থাগুলির চাপ বেড়েছে ৷ এদিকে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলিকে শক্তিশালী করতে নয়া মূলধনী প্যাকেজ আনা এবং প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ আনা ও দুনিয়াজুড়ে অবস্থার উন্নতির জেরে রফতানি বৃদ্ধির ফলে বছরের দ্বিতীয় অর্ধে অর্থনৈতিক গতি ত্বরান্বিত হলে বৃদ্ধি ৬.৭৫শতাংশ হবে৷

এই সমীক্ষা বলছে , পরের আর্থিক বছরের জন্য প্রধান ঝুঁকি ভারতের বৃদ্ধির ক্ষেত্রে হল আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বৃদ্ধির সম্ভাবনা৷ তবে আন্তর্জাতিক দুনিয়ার বৃদ্ধির ফলে ২০১৮ সালে মোটামুটি উন্নতি হবে৷ আশা করা হচ্ছে পণ্য পরিষেবা করের ক্ষেত্রে তুলনায় স্থিতিশীলতা বৃদ্ধি হলে লগ্নির স্তর বেড়ে পুনঃপ্রাপ্তি হতে পারে৷ তাছাড়া কাঠামোগত সংস্কার এবং অন্যান্য সহায়কর পদক্ষেপের জেরে উচ্চ হারে বৃদ্ধি সম্ভব৷

সমীক্ষা সরকারকে সতর্ক করেছে যেন নজরদারি রাখা হয় গুদামে থাকা পণ্যের দাম বাড়ান হচ্ছে কি না তা দেখতে৷ পরের বছরের সংস্কারের কর্মসূচীর কথা বলতে গিয়ে সমীক্ষা জানিয়েছে সরকারের প্রয়োজন পণ্য পরিষেবা করকে স্থিতিশীল করার, দ্বৈত ব্যালান্স শিটের জন্য ব্যবস্থা নেওয়া, এয়ার ইন্ডিয়ার বেসরকারিকরণ করা এবং ভাঙনের চাপ থেকে স্থিতিশীল অর্থনীতি বজায় রাখা৷ পরিপূরক সংস্কারের মাধ্যমে ক্ষতি হওয়া ব্যাংক সংকোচন এবং বেসরকারি ক্ষেত্রের অংশ গ্রহণ বাড়ানোর ব্যবস্থা করতে হবে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।