নয়াদিল্লি: জিডিপি বৃদ্ধির দেখা মিলল না বরং সংকোচন অব্যাহত। আশঙ্কা মতই পরপর দুটি ত্রৈমাসিকে ভারতের অর্থনৈতিক সংকোচন ঘটলো। ফলে আর্থিক মন্দার কবলে।

তবে আগের ত্রৈমাসিকের তুলনায় এবার অবস্থা কিছুটা উন্নতি ঘটেছে। ২০২০-২১ অর্থ বর্ষের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিক জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর জিডিপি বৃদ্ধি হয়নি উল্টে সংকোচন হয়েছে ৭.৫ শতাংশ।

এর আগের ত্রৈমাসিক অর্থাৎ এপ্রিল থেকে জুন মাসে অবশ্য সংকোচন হয়েছিল ২৩.৯ শতাংশ। অর্থাৎ এবারে সংকোচন হলেও তার হার কমেছে। অর্থনীতিবিদরা আশঙ্কা করেছিলেন দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে ৮.৮ শতাংশ হারে সংকোচন।

সেই তুলনায় অবস্থা একটু ভালো। পরপর দুটি ত্রৈমাসিকে জিডিপি সংকুচিত হলে সাধারণত ধরে নেওয়া হয় দেশটি আর্থিক মন্দার কবলে পড়েছে। সেই মতানুসারে আর্থিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন এদেশ এখন মন্দার কবলে। ১৯৯৬সালের পর অর্থনীতি এভাবে আর্থিক সংকোচনের মুখে পড়ল।

এভাবে চললে গোটা আর্থিক বছরে ৮.৭ শতাংশ সংকোচন হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। যেটা চার দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা। তবে এটাও ঠিক জিডিপি সংকোচনের হার কমায় অনেকে আশার আলো দেখছেন।

যেহেতু লকডাউনের জন্য প্রায় সমস্ত আর্থিক কার্যকলাপ বন্ধ ছিল , তারই প্রতিফলন দেখা গিয়েছে প্রথম ত্রৈমাসিকে । তারপর ধীরে ধীরে লকডাউন থেকে আনলক এর পথে যাচ্ছে দেশ।

বিভিন্ন অর্থনৈতিক কার্যকলাপ ফের শুরু হয়েছে। এর ফলে আগামী দিনে অবস্থার আরও কিছুটা উন্নতি হবে এবং অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞদের একাংশ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।