মেরট: চেতন সাকারিয়া, পীযূষ চাওলার পর করোনায় (Covid-19) বাবা-কে হারালেন আরপি সিং (RP Singh)৷ করোনায় আক্রান্ত হয়ে বুধবার মারা যান প্রাক্তন ভারতীয় দলের বাঁ-হাতি এই পেসারের বাবা শিব প্রসাদ সিং৷ সোশাল মিডিয়ায় বাবা’র মৃত্যু সংবাদ দিলেন ভারতের টি-২০ বিশ্বকাপজয়ী( T20 World Cup) দলের সদস্য আরপি সিং৷

রবিবার মারণ এই ভাইরাসে বাবাকে হারিয়েছেন রাজস্থান রয়্যালসের (Rajasthan Royals) তরুণ পেসার চেতন সাকারিয়া(Chetan Sakariya)। পরের দিন অর্থাৎ সোমবার করোনাতে মারা গিয়েছেন টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন লেগ-স্পিনার পীযূষ চাওলার (Piyush Chawla) বাবা। আর বুধবার আরও এক প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটারের পিতৃবিয়োগ হল কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে৷

টুইটারে বাবাকে হারানোর খবর জানিয়ে আরপি লেখেন, “It is with deepest grief and sadness we inform the passing away of my father, Mr Shiv Prasad Singh. He left for his heavenly abode on 12th May after suffering from Covid. We request you to keep my beloved father in your thoughts and prayers. RIP Papa.” (গভীর শোক ও দুঃখের সঙ্গে আমারা বাবা শিবপ্রসাদ সিংয়ের মৃত্যুর খবর জানাচ্ছি। করোনার সঙ্গে লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত হেরে গেলেন৷ ১২ মে পরলোক গমন করেছেন তিনি। আপনাদের অনুরোধ, আমার প্রয়াত পিতার আত্মার শান্তির জন্য প্রার্থনা করুন। চির শান্তিতে থাকুন বাবা)।

টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন এই বাঁ-হাতি পেসার মহেন্দ্র সিং ধোনির ২০০৭ টি-২০ বিশ্বকাপজয়ী দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন৷ দেশের হয়ে ১৪টি টেস্টে এবং ৫৮টি ওয়ান ডে এবং ১০টি টি-২০ ম্যাচ খেলেন উত্তরপ্রদেশের এই ক্রিকেটার৷ তিন ফর্ম্যাটে দেশের হয়ে মোট ১২৪টি উইকেট নিয়েছেন বাঁ-হাতি এই পেসার৷ মাত্র ৩২ বছর বয়সে আন্তর্জাতিক ক্রিকটেকে অবসর জানান আরপি৷ পরে তাঁকে ধারাভাষ্যকার (Commentary) হিসেবে দেখা গিয়েছে৷ এছাড়াও ক্রিকেট অ্যাডভাইজারি কমিটির (Cricket Advisory Committee) সদস্য ছিলেন ভারতের বিশ্বকাপজয়ী দলের এই সদস্য৷

আরপি সিং-এর বাবার মৃত্যু সংবাদ জানার পর সোশাল মিডিয়ায় শোক প্রকাশ করেছেন জাতীয় দলে তাঁর প্রাক্তন সতীর্থ প্রজ্ঞান ওঝা (Pragyan Ojha), সুরেশ রায়না (Suresh Raina), রমেশ পাওয়ার (Ramesh Powar), পার্থিব প্যাটেল (Parthiv Patel), ইরফান পাঠান (Irfan Pathan), মুনাফ প্যাটেল (Munaf Patel)৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.