নয়াদিল্লি: পাকিস্তানের আক্রমণের জবাবে গুলি থামাচ্ছে না ভারত। সীমান্তের ওপারে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানাল ভারতীয় সেনা। শনিবার সকালে এক ভারতীয় জওয়ান শহিদ হন। এরপরই পাক সেনা ঘাঁটি লক্ষ্য করে জবাব দিতে শুরু করে সেনাবাহিনী।

এদিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের মুখপাত্র লেফট্যানেন্ট কর্নেল দেবেন্দর আনন্দ জানিয়েছেন, পাক সেনার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পাকিস্তানের সেনাবাহিনীতে হতাহতের সংখ্যাও কম নয় বলে জানিয়েছেন তিনি। এদিন সকালে নৌসেরা সেক্টরে সংঘর্ষ বিরতি লঙ্ঘন করে গুলি চালায় পাকিস্তান। আর তার জবাবেই এই আক্রমণ করেছে ভারতীয় সেনা।

সংবাদসংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী, কাশ্মীরের রাজৌরি সেক্টরের ঠিক উল্টোদিকে পাকিস্তানের একটি সেনা ঘাঁটি লক্ষ্য করে পাল্টা হামলা চালিয়েছে ভারতীয় সেনা। ভারতীয় সেনার প্রত্যাঘাতে সম্পূর্ণ ভস্মীভূত হয়ে গিয়েছে পাক সেনা ঘাঁটি। পাশাপাশি প্রবল ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গিয়েছে। তবে সেই ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়ার ছবি প্রকাশ্যে এসেছে। এখনও জারি আছে গুলির লড়াই।

পাকিস্তান হামলা চালালে একেবারে খোলা হাতে পাকিস্তানকে জবাব দেওয়ার জন্যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই মত পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে যোগ্য জবাব দিচ্ছে ভারত। শুক্রবারই কাশ্মীরে আর্মি, এয়ার ফোর্স ও সব নিরাপত্তা বাহিনীকে সতর্ক করা হয়েছে। এদিকে, সোমবার থেকেই স্বাভাবিক হতে চলেছে কাশ্মীরের জনজীবন। তুলে নেওয়া হবে কার্ফু।

শুক্রবার সকালে এক পাকিস্তানি জওয়ানকে খতম করে ভারতীয় সেনা৷ এই নিয়ে মোট চার জন পাক জওয়ানকে নিকেশ করা গিয়েছে বলে সেনা সূত্রে খবর৷ পাক সেনার মৃত্যুর খবর স্বীকার করে নিয়েছে পাক প্রশাসন৷

পাক সেনা মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর ভারতীয় সেনাকে দোষারোপ করে বলেছেন ভারতীয় সেনাই প্রথম অশান্তি শুরু করে৷ পাক সেনার দাবি ভারতীয় সেনা পাঁচজন পাক জওয়ানকে মেরেছে৷ পাক বাঙ্কারও ধংস্ব করা হয়েছে৷ তবে ভারতের পক্ষ থেকে এই দাবি উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে৷

গত বৃহস্পতিবার স্বাধীনতা দিবসের সন্ধ্যায় সীমান্ত সংলগ্ন একাধিক ঘাঁটিতে শেলিং শুরু করে পাকিস্তান সেনা। খোলা হাতে পাকিস্তানকে কড়া ভাষায় জবাব দেয় ভারতীয় সেনা। সীমান্ত সংলগ্ন একাধিক পাক ঘাঁটি লক্ষ্য করে ভারতীয় সেনা প্রত্যাঘাত করে ভারী অস্ত্রে সাহায্যে চলে শেলিং।