লে: গালওয়ান থেকে সেনা সরিয়েছে চিন। সেনা হটানোর প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পরেই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের জায়গায় ফের পেট্রলিং শুরু করতে চলেছে ভারতীয় সেনা।

ইণ্ডিয়া টুডে’কে সূত্র জানিয়েছে, লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের পরিস্থিতি বিবেচনা করে গালওয়ানের পিপি-১৪ পেট্রলিং পয়েন্ট অবধি ফের টহলদারি শুরু করবে ভারতের সেনাবাহিনী।

আরও জানা গিয়েছে, যৌথভাবেই ক্যাম্প সরানোর বিষয়টিকে যাচাই করে বিশ্বাস অর্জনের কাজ দ্রুত শেষ হবে। এখনও অবধি গালওয়ানের পিপি-১৪ পেট্রলিং পয়েন্ট অবধি টহলদারি চালাচ্ছিল চিন।

ভারত ও চিন যৌথভাবে সংঘর্ষ এড়ানোয় সম্মতি প্রকাশ করলে বর্তমানে এই বিধিনিষেধ লাগু করা হয়েছে। এলএসি নিয়ে সংঘর্ষ এঁরাতে দুই দেশই গালওয়ান নদীর চত্বরের ৩ কিলোমিটার এলাকায় কিছুটা বাফার জোন ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে ভারতের তরফে কড়া নজরদারি চালানো হচ্ছে। লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলে চিন সেনা সরিয়েছে কিনা সে বিষয়টিও প্রতিনিয়ত নজর রাখা হয়েছে।

দু-তিন কিলোমিটার রাস্তা পিছু হটা নিয়ে বিবাদ, ভারত-চিন মিলিটারি স্তরের আলোচনায় যা ইতিমধ্যেই পরিষ্কার হয়েছে। ভারতের তরফে জানানো হয়েছে, প্যাংগং লেকে তিন কিলোমিটার পিছু হটা কিছুতেই সম্ভব নয় কারণ তাহলে ফিংগার-৪ থেকে সরে আসতে হবে। এই ফিংগার-৪ সবসময় ভারতের নিয়ন্ত্রণে ছিল। ভারত ফিংগার-৮-এ লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (LAC) দাবি করে।

লাইন অফ কন্ট্রোলে পিপি-১৪ থেকে শেষ অবধি সবকটি পেট্রোল পয়েন্ট ভারতের, তেমনটাই দাবি জানিয়েছে ভারত তবে তাঁরা ক্যাম্প তৈরি করেনি ভারত কারণ সেভাবেই চুক্তিবদ্ধ দুই দেশ।

জুনের ১৫ তারিখ ভারত-চিন পিপি-১৪-এ রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে লেগেছিল। ভারতীয় সেনার ২০ জন শহিদ হয়েছিল। তবে চিনের তরফে কতজন প্রাণ হারিয়েছে যে বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি।

গালওয়ান থেকে কিছুটা সরে গেল চিনের সেনা। সোমবার এমনই রিপোর্ট এসেছে। জানা গিয়েছে, গত ১৫ জুন যে জায়গায় সংঘাত হয়েছিল, সেখান থেকে অন্তত এক কিলোমিটার সরে গিয়েছে চিনের সেনা। গালওয়ানে শিথিল হতে শুরু করেছে ভারত ও চিন সেনা সংঘর্ষ। শেষ ৪৮ ঘণ্টায় কূটনৈতিক, মিলিটারি এবং উচ্চপর্যায়ের টানা আলোচনার ভিত্তিতেই তা সম্ভব হয়েছে বলেই।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ