ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি:  আরও কড়া হচ্ছে সীমান্তের নজরদারি৷ অনুপ্রবেশ, জঙ্গি হামলা, আন্তর্জাতিক পথে চোরাচালান ঠেকাতে বদ্ধ পরিকর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। আর তাই রাজস্থান লাগোয়া ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে বসানো হচ্ছে অত্যাধুনিক ব্যবস্থা। একেবারে বৈদ্যুতিক তার৷ যাতে সবসময় প্রবাহিত হবে বিদ্যুৎ৷

৮৪০ কিমি এলাকা জুড়ে এই ইলেকট্রিফায়েড কোবরা তার বসানো হবে। খুব শীঘ্রই এই তার বসানোর কাজ শুরু হবে বলে জানানো হয়েছে৷ শুধু বিশেষ তার দিয়ে ঘেরাই নয়, থাকছে বিএসএফের কড়া টহলদারি৷ এই কোবরা তার দিয়ে গোটা সীমান্তবর্তী এলাকা সিল করে দেওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এই তার কাটতে গেলে বা পেরোতে গেলে যে কেউ বিদ্যুতস্পৃষ্ট হবেন বলে জানানো হয়েছে বিএসএফের তরফে৷ শুধু তাই নয়, সঙ্গে সঙ্গে বেজে উঠবে অ্যালার্ম ও জ্বলে উঠবে বিশেষ আলো৷ ফলে সতর্ক হয়ে যাবেন বিএসএফ আধিকারিকরা৷ শব্দের উৎস ধরে তল্লাশি চালাতে সুবিধা হবে ও দ্রুত অপরাধীকে ধরে ফেলা যাবে বলে আশাবাদী তারা৷

উল্লেখ্য, ভারত-পাক সীমান্তে উত্তেজনা কমার লক্ষ্মণ নেই। অব্যাহত রয়েছে পাক উস্কানি। ভারতের তরফে বারবার শান্তির বার্তা দেওয়া হলেও কাশ্মীরে ক্রমাগত জঙ্গি অনুপ্রবেশ জারি রেখেছে পাকিস্তান। কার্যত পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ঘেরটোপেই সীমান্ত পেরিয়ে ভারতের মাটিতে জঙ্গি কার্যকলাপ চালায় পাক জঙ্গি সংগঠনগুলি। আর সেজন্যে সীমান্তে সবসময় হাই-অ্যালার্টে থাকতে হয় জওয়ানদের।

কিন্তু এবার সীমান্তে নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে আরও জোরদার করতে চায় ভারত। আর সেজন্যেই প্রাথমিকভাবে ৮৪০ কিমি এলাকা জুড়ে এই ইলেকট্রিফায়েড কোবরা তার বসাচ্ছে ভারত। প্রথমে রাজস্তানে এই সিস্টেম বসানো হলেও আগামীদিনে কাশ্মীরেও এই অত্যাধুনিক তার লাগানো হবে বলে জানা গিয়েছে।

এর পাশাপাশি, রাখা হবে সিসিটিভি ও অন্যান্য নজরদারির যন্ত্র৷ প্রতিবেশি শত্রু শুধু নয়, প্রচন্ড গরমে রোদের হাত থেকে বাঁচতে ওয়াটার কুলার ও ডিপ ফ্রিজারের ব্যবস্থাও রাখা হচ্ছে৷ যাতে ঠান্ডা জল পেতে পারেন জওয়ানরা৷ বিএসএফ ডিআইজি রবি গান্ধী এমনই তথ্য দেন সাংবাদিকদের৷ খাওয়ার জন্য তাজা ফল ও সবজিও রাখা হবে জওয়ানদের জন্য৷