শ্রীনগর: লাইন অফ কন্ট্রোলে একের পর এক যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান। সেই জবাবে কড়া প্রত্যাঘাত ছুঁড়ে দিয়েছে ভারতও। সেখানেই দু’জন পাক সেনা মারা গিয়েছেন বলেই জানা গিয়েছে। বৃহস্পতিবার জম্মু ও কাশ্মীরের পুঞ্চ জেলার লাইন অফ কন্ট্রোলে এই ঘটনা ঘটেছে বলেই জানা গিয়েছে।

এদিন পাকিস্তান বিনাপ্ররোচনায় গুলি চালায় ভারতের উদ্দেশ্যে। অস্ত্র ব্যবহার করে কাসবা, কেরনি এবং শাহপুর অঞ্চলে গুলিবর্ষণ করে পাকিস্তান। এই ঘটনার প্রত্যুত্তরেই পাক সেনার বিরুদ্ধে রাখচক্রি এলাকায় শক্তি প্রদর্শন করেছে ভারত। সেখানেই ১০ বালোচ আর্মির দুই পাক সেনার মৃত্যু হয়েছে।

ভারতীয় সেনার কড়া প্রত্যাঘাতে বেশ কয়েকটি বাঙ্কার গুঁড়িয়ে গিয়েছে বলেই জানা গিয়েছে। পাকিস্তানের বিদেশ মন্ত্রকের তরফে পাকিস্তানস্থিত ভারতের হাই কমিশনের সঙ্গে বিক্ষোভ জানানোর ভাবনা করা হয়েছে।

এদিকে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে জম্মু ও কাশ্মীরের মালবাগে শুরু হয়েছে এনকাউন্টার। ভারতীয় সেনার সঙ্গে জঙ্গিদের গুলির লড়াইয়ে শহিদ হয়েছেন এক সিআরপিএফ হেড কনস্টেবল এবং ভারতের গুলিতে খতম হয়েছে এক জঙ্গি।

এদিন সন্ধ্যায় শ্রীনগরের বাইরের এলাকা লাগোয়া মালবাগে এই ঘটনা ঘতেছে। গোপন সুত্রে খবর খবর পেয়ে তল্লাশি অভিযান শুরু করা হয়, সেখানেই এই ঘটনা ঘটেছে।

তল্লাশি অভিযান চলাকালীন জঙ্গিরা শূন্যে গুলি চালায় এবং পরে সেনাবাহিনীকে উদ্দেশ্য করেও গুলি চালানো হয়েছে, এমন তথ্যই দিয়েছেন এক আধিকারিক। প্রথমে গুলিতে সিআরপিএফ জওয়ানরা আহত হয়েছেন এবং পরে তাঁদের ৯২ বেস আর্মি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তাঁদের মধ্যে একজনকে হেড কনস্টেবল কুলদীপ উরাওহা বলে চিহ্নিত করা হয়েছে।

যে জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে, এখনও অবধি তার পরিচয় পাওয়া যায়নি বলেই অফিশিয়াল সূত্রের খবর পাওয়া গিয়েছে। তবে সেনা জানাচ্ছে আরও জঙ্গি সেখানে লুকিয়ে রয়েছে। এখনও অবধি সেখানে নাকাতল্লাশি চলছে বলেই জানা যাচ্ছে। গোয়েন্দা সূত্রের খবর, সেখানে মোট তিনজন জঙ্গি লুকিয়ে থাকার সম্ভাবনা প্রকাশ করেছেন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ