বর্ণবিদ্বেষের প্রতিবাদে হোয়াইট হাউসের সামনে মিছিলে ইন্দো-আমেরিকানরা

ওয়াশিংটন: মার্কিনমুলুকে জাতি-ধর্ম-বর্ণগত বিদ্বেষের শিকার হিন্দু এবং শিখ সম্প্রদায়৷ বিদেশিদের দ্বারা বারবার আক্রান্ত হয় ভারতীয় বংশোদ্ভুতরা৷ বিশেষত হিন্দু এবং শিখ সম্প্রদায়ভুক্তদেরকে ইচ্ছাকৃতভাবে হেনস্থা করা হয় বলে অভিযোগ৷ আর এই বিষয়েই ক্ষুব্ধ হয়ে সোমবার হোয়াইট হাউসের সামনে এই বিষয়ে একটি শান্তিপূর্ণ সচেতনতা সমাবেশের আয়োজন করেন তারা৷ এই বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হস্তক্ষেপ আশা করেছেন তারা৷ এক আইনজীবী সূত্রে খবর, সম্প্রতি ইসলাম বিরোধী বিদ্বেষের কারণে হিন্দুরা আক্রান্ত হচ্ছে৷ এটি এই সমাজেও যথেষ্ট প্রভাব ফেলেছে৷

সম্প্রতি মার্কিনমুলুকে বিদ্বেষের শিকার হয়েছিলেন অঙ্কুর মেহেতা৷ এই ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তি বারবার অকারণে কনুই দিয়ে আঘাত করছিল৷ এর পাশাপাশি কটু কথাও তাকে বলছিল৷ এর আগে  মার্কিন মুলুকে বিদ্বেষের শিকার হন প্রবাসী ভারতীয় শিখ ধর্মাবলম্বী এক যুবক। তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালানো হয়। আহত ওই যুবকের নাম দীপ রাই৷ জানা গিয়েছে, মুখোশ পরে হামলা চালিয়েছিল ওই আততায়ী৷ হামলার সময় আততায়ীর মুখ থেকে শোনা গিয়েছে ‘তোমার দেশে ফিরে যাও’। দক্ষিণ ক্যারোলিনায় বাড়ির সামনে গুলি করে খুন করা হয় হারনিস প্যাটেল নামে এক ভারতীয় ব্যবসায়ীকে৷ কানসাসে শ্রীনিবাস কুঞ্চুভোটলার নামে এক প্রবাসী ভারতীয়কে গুলি করে খুন করে ওই দেশের সেনাবাহিনীর এক প্রাক্তন কর্মী। তিনি পেশায় ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন। ওলাথের গার্মিন হেডকোয়ার্টারে কাজ করতেন। বুধবার রাতে একটি কানসাস শহরের একটি বারের মধ্যে ভারতীয়দের লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে মার্কিন বায়ুসেনার অবসরপ্রাপ্ত কর্মী অ্যাডাম পিউরিনটন। সবক্ষেত্রেই উঠে এসেছে হিন্দুদের প্রতি চরম বিদ্বেষের নিদর্শন৷

এই সমাবেশে উপস্থিত এক সদস্য জানিয়েছেন, ভারতীয় বংশোদ্ভুত ব্যক্তিরা যাতে নিশ্চিন্তে মার্কিনমুলুকে বাস করতে পারে৷ পাশাপাশি তারা বারবার যাতে বিদ্বেষের শিকার না হন৷ সেই বিষয়ে ট্রাম্পের নজর কাড়তেই এই সমাবেশের আয়োজন করেছে তারা৷ তিনি এও জানিয়েছেন, এই ঘটনায় তারা প্রশাসনের বিরুদ্ধে গিয়েও প্রতিবাদ জানাতে চাননা৷ সন্ত্রাস দমন যাতে খুব শীঘ্রই হয়৷ সেই ব্যাপারেই ট্রাম্পের নজর কাড়তে চাইছেন তারা৷
তিনি আরও জানিয়েছেন, ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট পদে আসার পরই শরণার্থীদের উপর যে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন৷ ভারতীয়দের ভিসার উপরও আক্রমণ করেছেন ট্রাম্প৷ প্রশাসনের এমন নির্দেশই যে আরও বিদ্বেষ বাড়িয়ে দিয়েছে সে ব্যাপারে তিনি নিশ্চিত৷ তারা প্রেসিডেন্টের কাছে আরজি জানিয়েছেন, এই বিদ্বেষ প্রতিকারের জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য৷ যাতে ভারতীয় বংশোদ্ভুতরা নিশ্চিন্তে বিদেশের মাটিতে থাকতে পারেন৷

All rights reserved by @ Kolkata24x7 II প্রতিবেদনের কোন অংশ অনুমতি ছাড়া প্রকাশ করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ