মুম্বই: বেদা কৃষ্ণমূর্তির পর মাতৃহারা হলেন প্রিয়া পুনিয়া (Priya Punia)৷ কোভিড-১৯ (Covid-19) কেড়ে নিল ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট (India women’s cricketer) দলের আর এক সদস্যের মা’কে৷ মঙ্গলবার সোশাল মিডিয়ায় মায়ের মৃত্যু সংবাদ দিয়ে শোকপ্রকাশ করলেন বছর চব্বিশের এই ক্রিকেটার৷

কিছুদিন আগেই মারণ এই ভাইরাসের কবলে মা ও বোনকে হারিয়েছে জাতীয় দলে প্রিয়ার সতীর্থ বেদা কৃষ্ণামূর্তি৷ মঙ্গলবার ইনস্টাগ্রামে মায়ের মৃত্যুর খবর প্রকাশ করে প্রিয়া লেখেন, “Today I realized why you always told me to be strong. You knew that one day I would need the strength to bear the loss of yours. I miss you so mom!”

বছর চব্বিশের এই মরাঠি তরুণী আসন্ন ইংল্যান্ড সফরে ভারতীয় দলে রয়েছেন৷ কিন্তু তার আগেই তাঁর আগে মাকে হারালেন প্রিয়া৷ সোশাল মিডিয়ায় মায়ের ছবি পোস্ট করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে তিনি লেখেন, “No matter the distance I know you are always there with me. My guiding star, my mom. Love you always. Some truths in life are hard to accept. Your memories will never be forgotten! Rest In Peace Mom. Please follow the rules and take precautions. This virus is very dangerous. Wear a mask, maintain social distancing, stay safe and stay strong.”

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে ভারতীয় দলে অভিষেক হয় প্রিয়া পুনিয়ার৷ এখনও পর্যন্ত দেশের হয়ে সাতটি ওয়ান ডে এবং তিনটি টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন এই মারাঠি তরুণী৷ আসন্ন ইংল্যান্ড সফরে ভারতীয় দলে জায়গা পেয়েছেন প্রিয়া৷ ইংল্যান্ডে ১৬ জুন থেকে ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে একটি টেস্ট, তিনটি ওয়ান ডে এবং তিনটি টি-২০ ম্যাচ খেলবে ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট দল৷ তার আগে ভারতীয় দলের ক্রিকেটারদের মুম্বইয়ের টিম হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে৷ তবে প্রিয়া কয়েকদিনের মধ্যেই কোয়ারেন্টাইনে যোগ দিতে পারবেন কি না, জানা যায়নি৷

মারণ এই করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ কেড়ে নিয়েছেন বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারের বাবা ও মাকে৷ গত মাসে মা ও দিদিকে হারিয়েছেন জাতীয় দলে প্রিয়ার সতীর্থা বেদা কৃষ্ণামূর্তি৷ মাকে হারানোর সপ্তাহ দু’য়েকের ব্যবধানে দিদিকেও হারান তিনি৷ তারপর ভারতীয় দলের প্রাক্তন লেগ-স্পিনার পীযুষ চাওলা এবং বাঁ-হাতি পেসার আরপি সিং করোনায় তাঁদের বাবাকে হারিয়েছেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.