চেন্নাই: জো রুটদের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে কোনও প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে না টিম ইন্ডিয়া৷ তবে ইংল্যান্ড সফরে রুটদের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে ভারত-এ দলের বিরুদ্ধে দু’টি ওয়ার্ম-আপ ম্যাচ খেলবে বিরাট কোহলিরা৷

৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলবে ভারত৷ এই মুহূর্তে দুই দলই চেন্নাইয়ে রয়েছে৷ চার টেস্টের সিরিজে শুরু চিপকে ৫ ফেব্রুয়ারি৷ দ্বিতীয় টেস্টটিও হবে এখানে৷ বুধবারই দুই দলের ক্রিকেটাররা চেন্নাই পৌঁছেছেন৷ শ্রীলঙ্কা সফর শেষ করে কলম্বো থেকে সরাসরি চেন্নাইয়ে পৌঁছেছে রুটবাহিনী৷ আর ভারতীয় ক্রিকেটাররা যে যার বাড়ি থেকে বুধবার চেন্নাইয়ে টিম হোটেলে যোগ দিয়েছেন৷

ফেব্রুয়ারি-মার্চে ঘরের মাঠে সিরিজের পর চলতি বছরের অগস্ট-সেপ্টেম্বরে ইংল্যান্ড সফরে যাবে ভারত৷ সেখানে পাঁচ টেস্টের সিরিজ খেলবেন বিরাট-রাহানেরা৷ বিরাটদের সঙ্গে ইংল্যান্ডে পাড়ি দেবে ভারত-এ দলও৷ সেখানে ভারত-এ দলের বিরুদ্ধে দু’টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া৷ চারদিনের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচটি হবে ২১ জুলাই ওয়ানটেজ রোডে৷ আর দ্বিতীয় ম্যাচটি খেলবে ২৮ জুলাই থেকে গ্রেস রোডে৷

ইংল্যান্ড সফরে বিরাটদের পাঁচ টেস্টের সিরিজ শুরু হবে ৪ অগস্ট নটিংহ্যামে৷ দ্বিতীয় ও চতুর্থ টেস্ট ম্যাচ হবে লন্ডনে যথাক্রমে ১২-১৬ অগস্ট এবং ২-৬ সেপ্টেম্বরে৷ আর তৃতীয় এবং পঞ্চম তথা সিরিজের শেষ টেস্ট ম্যাচটি হবে লিডস (২৫-২৯ অগস্ট) ও ম্যাঞ্চেস্টারে (১০-১৪ সেপ্টেম্বর)৷

তবে তার আগে ঘরের মাঠে রুটদের সঙ্গে টক্কর নিয়ে নামছে টিম ইন্ডিয়া৷ সদ্য অস্ট্রেলিয়ায় চার টেস্টের সিরিজ জিতে ফিরেছে ভারতীয় দল৷ প্রথম টেস্টের পর বিরাট পিতৃত্বকালীন ছুটি নিয়ে দেশে ফিরলেও অজিঙ্ক রাহানের নেতৃত্বে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ২-১ চার টেস্টের সিরিজ জেতে টিম ইন্ডিয়া৷

অন্যদিকে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ২-০ সিরিজ জিতে বুধবারই ভারতে পা-রেখেছে ইংল্যান্ড৷ দু’টি টেস্টেই লঙ্কাবাহিনীকে পর্যুদস্ত করে সিরিজ পকেটে পুরে নেয় রুট অ্যান্ড কোং৷ চেন্নাই বিমানবন্দরে কোভিড টেস্ট দিয়েই টিম হোটেলে ঢোকেন ইংল্যান্ড ক্রিকেটাররা৷

চার টেস্টের সিরিজ ছাড়াও পাঁচটি টি-২০ এবং তিন ম্যাচের ওয়ান ডে সিরিজ খেলবে ইংল্যান্ড৷ চেন্নাইয়ে ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে টেস্ট সিরিজ শুরু৷ দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচটিও হবে চিপকে৷ সিরিজের পরের দু’টি টেস্ট হবে আমদাবাদে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম মোতেরায়৷ কোভিডের কারণে চারটি টেস্ট হচ্ছে মাত্র দু’টি ভেন্যুতে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।