ইসলামাবাদ: ফের বড় ধরনের প্রত্যাঘাত করতে পারে ভারত। এমনই আশঙ্কায় ভুগতে শুরু করেছে পাকিস্তান।

ইতিমধ্যেই পুলওয়ামার ঘটনার পরে পাকিস্তানের মাটিতে অভিযান চালিয়েছে বায়ুসেনা। দিল্লির পক্ষ থেকে এই ধরনের বিষয় যে অস্বাভাবিক নয় তা বিলক্ষন জানে ইসলামাবাদ। কিন্তু এক্ষেত্রে পাকিস্তানের ভয়ের কারণ হচ্ছে, পাক বিরোধী যুদ্ধে ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছে ইজরায়েল।

 

গত মাসের ১৪ তারিখে পুলওয়ামা হামলার পরেই সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে ভারতকে সাহায্যের বার্তা দিয়েছিল ইজরায়েল। এবার ওই দেশের সামরিক সহায়তায় ফের পাকিস্তানের মাটিতে ভারত হামলা চালাতে পারে বলে আশঙ্কা করছে পাকিস্তান। মঙ্গলবার এমনই সংবাদ পরিবেশন করেছে পাকিসানের প্রথম সারির সংবাদ মাধ্যম দ্যা ডন। ভারতের প্রশাসনিক মহলের শীর্ষ স্তরের সূত্র নারফত এই খবর জানা গিয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে ডনের প্রতিবেদনে।

ওই প্রতিবেদনে লেখা হয়েছে যে আবারও পাকিস্তানের মাটিতে প্রত্যাঘাতের পরিকল্পনা করেছে ভারত। এক্ষেত্রে ভারতীয় সেনাকে সাহায্য করবে ইজরায়েল। এক্ষেত্রেও আকাশ পথেই অভিযান চালাবে ভারত। ওই প্রতিবেদনে আরও বলে হয়েছে যে এবার আর কাশ্মীর সীমানা নয়। রাজস্থান সীমান্ত থেকে শুরু হবে আক্রমণ। মরুরাজ্যের এয়ার স্টেশন থেকে ভারতীয় বায়ুসেনা ইজরায়েলের সাহায্যে হামলা চালাবে। পাক সীমান্ত থেকে প্রায় ১০০ কিমি দূরে অবস্থিত রাজস্থানে এয়ার স্টেশন থেকে অভিযান চালানো খুব একটা প্রতিকূল হবে না বলেই নাকি ভারতীয় বায়ুসেনা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমনই লেখা হয়েছে ডনের প্রতিবেদনে।

ভারত যে ফের আকাশপথে প্রত্যাঘাত চালাবে তা অনেক আগেই তের পেয়েছিল পাকিস্তান। সোমবারেই এই বিষয়ে মুখ খুলেছিলেন পাকিস্তান এয়ার ফোর্সের প্রধান তথা এয়ার চিফ মার্শাল মুজাহিদ আনোয়ার খান। সংবাদ মাধ্যম ডন জানিয়েছিল যে ভারতের প্রত্যাঘাতের আশঙ্কায় পাকিস্তান এয়ার ফোর্সের সকল অফিসারদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন মুজাহিদ আনোয়ার খান।

অন্যদিকে ভারতের বায়ুসেনা প্রধান বিএস ধানোয়া ফের প্রত্যাঘাতের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন সাংবাদিক সম্মেলনে। সেই বক্তব্য থেকেই জোরাল হয় ভারতের ফের প্রত্যাঘাতের সম্ভাবনা। তিনি জানান যে অপারেশন চলছে সেই নিয়ে তিনি কোনও মন্তব্য করবেন না৷ আর তাঁর এই বক্তব্য থেকেই মনে করা হচ্ছে, সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ভারত এখনও তার অপারেশন চালিয়ে যাচ্ছে৷