নয়াদিল্লি : থার্ড ব্যাচের রাফায়েল হাতে পেল ভারত। ফ্রান্স থেকে সাত হাজার কিমি পথ পাড়ি দিয়ে বুধবার ভারতের মাটি ছুঁল এই তিনটি রাফায়েল। যাত্রা পথে কোথাও এই তিনটি যুদ্ধবিমানকে জ্বালানি ভরার জন্য নামতে হয়নি। মাঝ আকাশেই জ্বালানি ভরার কাজ সেরেছে রাফায়েল।

নিজেদের অফিশিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেলে ভারতীয় বায়ুসেনা জানায়, ফ্রান্সের ইসস্ট্রেস এয়ার বেস থেকে ভারতে এসে নেমেছে তিনটি রাফায়েল, যা মাঝ আকাশে উড়ান চলাকালীনই জ্বালানি ভরতে সক্ষম। মোট ৩৬টি রাফালে যুদ্ধবিমান ৫৯ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে অর্ডার করা হয়েছিল। এবার তিনটি রাফায়েল বিমান ভারতে আসছে বলে জানা গিয়েছে। ফ্রান্স থেকে সোজা জামনগরে পৌঁছবে এই তিন রাফায়েল। ২০১৬-র সেপ্টেম্বরে অর্ডার করা হয়েছিল এই যুদ্ধবিমান। জানুয়ারিতে তিনটি জেট সরবরাহের ফলে আইএএফের ইনভেন্টরিতে রাফায়েলের সংখ্যা হবে ১১।

বায়ুসেনার তিনটি রাফায়েল যুদ্ধবিমানের নভেম্বরের গোড়ার দিকে ফ্রান্স থেকে গুজরাতের জামনগর বিমানবন্দরে পৌঁছেছিল। আইএএফ দ্বারা অর্ডার করা ৩৬টি রাফায়েল জেটের প্রথম ৫টি ২৯ জুলাই আম্বালা বিমানবন্দরে পৌঁছেছিল। রাফালের প্রদর্শন অনুষ্ঠিত হয় গত ১০ সেপ্টেম্বরে। লাদাখ উত্তেজনার মধ্যে রাফায়েলের আগমন বিশেষ বার্তা দিয়েছিল চিনকেও।

লাদাখ সীমান্তে দীর্ঘদিন ধরে চিন সেনা মোতায়েন করছিল। তা নিয়ে উত্তেজনা বাড়ছিল ক্রমশ। দুই পক্ষের সেনাবাহিনীর মধ্যে খণ্ডযুদ্ধ লেগেই ছিল। এরই মধ্যে রাফায়েলের হাতে আসা, দীর্ঘকালীন সীমান্ত বিরোধের মধ্যে চিনের উস্কানিতে প্রভাব ফেলেছে। গত সেপ্টেম্বরে লাদাখের আকাশে রাফায়েল উড়িয়ে জবাব দেওয়া হয়েছে চিনকে।

লাদাখ ও লে-র আকাশে উড়তে দেখা যায় রাফায়েল যুদ্ধবিমানকে। এরফলে স্পষ্ট, সীমান্তে একদিকে যেমন মোতায়েন সেনারা সজাগ রয়েছে, তেমনই বায়ুসেনাও নজর রাখছে চিনের ওপর। এদিকে, ২০২১ সালের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে অংশ নেয় রাফায়েল। প্রজাতন্ত্র দিবসের ইতিহাসে এই প্রথম অংশ নেয় রাফায়েল যুদ্ধবিমান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।