বেজিং:  আমেরিকার সঙ্গে বাঁধন শক্ত করছে ভারত। আমেরিকায় মোদী পৌঁছতেই ভারতকে আধুনিক যুদ্ধাস্ত্রে ব্যবহৃত ড্রোন দিয়েছে ট্রাম্প। জঙ্গি সালাউদ্দিনকে ঘোষণা করা হয়েছে আন্তজাতিক জঙ্গি। মার্কিন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মূলত চিনকে চাপে রাখতেই ভারতের কাছাকাছি আসার চেষ্টা করছে আমেরিকা। আর তা নিয়ে বেশ চিন্তার ভাঁজ পড়েছে চিনের কপালে। চিনা সংবাদমাধ্যমের হুঁশিয়ারি, আমেরিকার সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে ভারত যদি চিনের মোকাবিলা করার চেষ্টা করে তাহলে তার ফল ভয়াবহ হবে।

সোমবার রাতে বৈঠকে বসেন মোদী-ট্রাম্প। এরপরের চিনা সংবাদমাধ্যমের তরফে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় ভারতকে। গ্লোবাল টাইমস লিখেছে মোদী-ট্রাম্পের বৈঠক নিয়ে পরোক্ষভাবে ভারতকে হুঁশিয়ারি দিয়েছে। চিনা সংবাদমাধ্যমের দাবি, জাপান বা অস্ট্রেলিয়ার মতো আমেরিকার শরিক নয় ভারত। একই সঙ্গে আরও বলা হয়েছে, ভারত যদি মনে করে থাকে চিনের মোকাবিলা করতে তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আউটপোস্ট (দেশের বাইরে ঘাঁটি) হিসেবে কাজ করবে, তাহলে তারা ভুল করবে। এই সিদ্ধান্ত ভয়াবহ বিপর্যয়ের সামিল হবে।

এখানেই শেষ নয়, পত্রিকায় আরও লেখা হয়েছে, ভারত যদি নিজেদের নির্জোট অবস্থান থেকে সরে এসে চিনকে রুখতে আমেরিকার ‘বড়ে’ হওয়ার চেষ্টা করে, তাহলে তারা কূটনৈকতিক কৌশলগত সমস্যায় পড়বে এবং দক্ষিণ এশিয়ায় নতুন ভূ-রাজনৈতিক সংঘাতের সৃষ্টি হবে। এক্ষেত্রে, ইতিহাসের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছে বেজিং। বলা হয়েছে, পাঁচের দশকের শেষে ও ছয়ের দশকের গোড়ার দিকে চিনের মোকাবিলা করতে ভারতকে ব্যবহার করেছিল রাশিয়া ও আমেরিকা। সবাই জানে তারপর কী ঘটেছিল।

যদিও এই বিষয়টি নিয়ে মাথা ঘামাতে রাজি নয় ভারত। কারণ এর আগেও ভারতকে একাধিকবার হুঁশিয়ারি দিয়েছে চিন।