নয়াদিল্লি : হাতে নয়, চিনকে এবার ভাতে মারতে প্রস্তুত ভারত। চিনা মোবাইল, মোবাইলের সরঞ্জাম বা চিনা অন্যান্য ইলেকট্রিকাল দ্রব্যে ভারতের বাজার ছেয়ে গিয়েছে। সেই পথ এবার বন্ধ করে স্বনির্ভরতার পথে হাঁটতে চাইছে নয়াদিল্লি। দেশের আর্থিক ব্যবস্থাকে চাঙ্গা করতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ডাক দিয়েছিলেন আত্মনির্ভরতার।

সেই পথে হেঁটে দেশেই উৎপাদন হবে মোবাইল থেকে অন্যান্য প্রয়োজনীয় ইলেকট্রিকাল সরঞ্জাম। যাতে চিন থেকে আমদানির হার কমে উল্লেখযোগ্য ভাবে। এজন্য বিনিয়োগের রাস্তা খুলে দিতে চাইছে কেন্দ্র। মোদী সরকারের প্ল্যান বিদেশী বিনিয়োগ এনে দেশের মাটিতে কর্মসংস্থানের রাস্তা তৈরি করার।বিভিন্ন বিদেশী প্রস্তুতকারক সংস্থাকে এজন্য আহ্বান জানানো হয়েছে।

যাতে চিন নয়, ভারতের মাটিতে তৈরি হতে পারে বিভিন্ন ইলেকট্রিকাল দ্রব্য, যা দেশকে আত্মনির্ভর করবে। তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ জানানবিশ্বের প্রথম সারির মোবাইল প্রস্তুতকারক দেশ হওয়ার লক্ষ্যে এগোচ্ছে ভারত। প্রথম পাঁচটি দেশের মধ্যে ভারতের নাম থাকবে খুব তাড়াতাড়ি। এছাড়াও যদি বিদেশি কোম্পানিগুলি এই দেশে মোবাইল প্রস্তুত করতে ইচ্ছুক হয়, সেই পথটাও প্রশস্ত করে দেওয়া হচ্ছে।

ভারতের লক্ষ্য দক্ষিণ কোরিয়ার স্যামসাং, তাইওয়ানের ফক্সকন ও উইশট্রন (যারা আইফোন ও অ্যাপেল ফোনের সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক)মতো কোম্পানিগুলিকে দেশে নিয়ে আসা। ইতিমধ্যেই করোনার জেরে মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থা লাভা চিন থেকে নিজেদের ব্যবসা গুটিয়ে নিয়ে ভারতে চলে আসতে চাইছে।

প্রচুর কোম্পানি চিন থেকে তাঁদের ব্যবসা গোটাতে চলেছে বলে খবর রয়েছে। সম্প্রতি সামনে আসছে জার্মানি জুতোর কোম্পানি চিন থেকে তাঁদের ব্যবসা গুটিয়ে ভারতে এনে শুরু করতে চাইছে। ব্র্যান্ড ভন ওয়েলেক্সের মালিক কাসা এভারজ জিএমবিএইচ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, ইট্রিক ইন্ডাস্ট্রিজ প্রাইভেট লিমিটেডের সহযোগিতায় উত্তর প্রদেশের আগ্রায় নতুন করে কারখানা গড়বেন। সেখানে নতুন করে সব শুরু হবে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।