প্রতীকী ছবি

চেন্নাই: ২০১৭ সালে কার্টোস্যাট ২ মিশন সফল। চন্দ্রায়নের সাফল্যেও দেশ গর্বিত। ২০২০ সালে সূর্যের দেশেও পাড়ি দিতে পারে ইসরোর মহাকাশযান আদিত্য এল-১। তার আগেই ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো) কার্টোস্যাট-৩ মহাকাশে পাঠাবে বলেই জানা গিয়েছে। শুধু তাই নয়, তেরোটি কৃত্রিম উপগ্রহ সান সিনক্রোনাস অরবিটে পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানিয়েছে ইসরো।

ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, ২৫ নভেম্বর তেরোটি কৃত্রিম উপগ্রহ নিয়ে উড়ে যাবে কার্টোস্যাট-৩ স্যাটেলাইট সকাল ৯টা ২৮ মিনিট নাগাদ। আমেরিকা থেকে পোলার স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকল পিএসএলভি-এক্সএলের পিঠে চাপিয়ে কার্টোস্যাটকে পাঠানো হবে ৫০৯ কিলোমিটার কক্ষপথে।

কার্টোস্যাট-৩ উন্নতমানের। আবহাওয়ার গতিপ্রকৃতি থেকে দেশের প্রতিরক্ষার কাজেও ব্যবহার করা যাবে এই কৃত্রিম উপগ্রহ। অতিসূক্ষ্ম বস্তু এর হাইরেজোলিউশন লেন্সে বন্দি হবে। কাজেই সীমান্তের ওপারে জঙ্গিদের ঘাঁটি বা বাঙ্কার, যেকোন আড়ালে লুকিয়ে থাকা সুড়ঙ্গগুলি সহজেই ধরা দেবে এর ক্যামেরায়। এমনকি বন্দুকের মতো অস্ত্রশস্ত্রও দেখা সম্ভব হবে। চন্দ্রায়নের পরবর্তী মিশনগুলোও ইতিহাস তৈরি করবে বলে আগেই জানিয়েছে ইসরো।

২০২০ সাল থেকে জোরকদমে আরও তিন ঐতিহাসিক লক্ষ্যের পথে পা বাড়াবে ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা। চাঁদের পরে সূর্য অভিযানে নামবে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা। ইসরো জানিয়েছে, আমেরিকা থেকে এই তেরোটি কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠানোর কাজটি মহাকাশ বিভাগের আওতায় নতুন কোম্পানি নিউ স্পেস ইন্ডিয়ার তত্ত্বাবধানে হয়েছে। পৃথিবীর কক্ষপথে সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি স্পেস স্টেশন বানানোর কাজও শুরু হবে। নাসার লুনার স্টেশনের মতো মহাকাশে নিজেদের বাড়ি বানিয়ে নতুন নজির গড়বে ভারত।