মালে: মালদ্বীপের পাশে ভারত৷ মালদ্বীপের প্রাচীন স্থাপত্যগুলির পুনর্নিমাণে সাহায্য করবে ভারত৷ শনিবার মুসলিম অধ্যুষিত মালদ্বীপে দাঁড়িয়ে একথা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ মালদ্বীপের পার্লামেন্টে, পিপলস মজলিশে এদিন বক্তব্য রাখেন মোদী৷

মালদ্বীপ ও ভারতের দ্বিপাক্ষিক গভীর সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে মোদী বলেন প্রাচীন স্থাপত্যগুলির সংরক্ষণে আগ্রহী ভারত৷ এর মধ্যে প্রবাল পাথরে তৈরি প্রাচীন ফ্রাইডে মস্ক (Friday Mosque) বা হুকুরু মিস্কিইর নাম বিশেষ ভাবে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী৷ এই ধরণের মসজিদ পৃথিবীর কোথাও নেই৷ ভারত চায় এই মসজিদের সংরক্ষণ ও পুনর্নগঠনের সাহায্য করতে৷

উল্লেখ্য এই ফ্রাইডে মস্ক ১৬৫৮ সালে তৈরি হয়৷ মালের অন্যতম প্রাচীন ও অলংকরণে সুসজ্জিত এই মসজিদ দর্শকদের অন্যতম পছন্দের ভ্রমণস্থান৷ ২০০৮ সালে ইউনেস্কো এই মসজিদকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ কালচারাল লিস্টে স্থান দেয়৷ সমুদ্র ভাস্কর্য বিভাগের অন্যতম এই মসজিদ আজও মালের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন স্থান৷

শনিবার মালদ্বীপের ধারাবাহিক উন্নয়নের প্রশংসা করে এদিন মোদী বলেন এজন্য এখানকার সরকারের কৃতিত্ব প্রাপ্য৷ যেভাবে মানুষের জন্য কাজ করছেন তাঁরা, তা শিক্ষণীয়৷ তাই মালদ্বীপের পাশে সবসময় রয়েছে ভারত৷ পিপলস মজলিশ বা মালদ্বীপের সংসদে দাঁড়িয়ে বার্তা মোদীর৷

মালদ্বীপের প্রধানমন্ত্রী ইব্রাহিম মহম্মদ সোলিহ ভারতকে তাঁদের স্থাপত্য পুনর্গঠনে সাহায্য করার জন্য ধন্যবাদ জানান৷ দুই দেশের যৌথ সাংবাদিক বৈঠকে এক সরকারি বিবৃতি পেশের মাধ্যমে মালদ্বীপের বক্তব্য তুলে ধরেন ইব্রাহিম সেলিহ৷

মালদ্বীপে আসার পর নরেন্দ্র মোদীকে সেদেশের সরকার ‘রুল অফ নিশান ইজুদ্দিন’ এ সম্মানিত করে৷ এটি মালদ্বীপের সর্বোচ্চ সম্মান৷ দ্বীপরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মহম্মদ সোলিহ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে এই সম্মানে ভূষিত করেন৷

মোদীর কথায়, আপনাদের আপ্যায়ন প্রত্যেক ভারতবাসীর মন ছুঁয়ে গিয়েছে৷ দুই দেশের সম্পর্ক ইতিহাসের থেকেও পুরোনো৷ সেই সম্পর্ক আগামিদিনেও বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর মোদী৷ জানান, মালদ্বীপের গণতন্ত্রকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে ভারত সমসময় তাদের পাশে থাকবে৷

দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসে প্রথম বিদেশ সফর হিসাবে দ্বীপরাষ্ট্রকে বেছে নেন নমো৷ এদিন তাঁর বক্তব্যে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পেয়েছিল সন্ত্রাসবাদ৷ মোদী বলেন, ‘‘সন্ত্রাসবাদ এখন আর কোনও একটি দেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই৷ সভ্যতা ও মানবতার পক্ষে বিপদজ্জনক হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ এর থেকেও ভয়ঙ্কর এবং আরও বিপদজ্জনক হল রাষ্ট্র পরিচালিত সন্ত্রাস৷ তাই সময় এসেছে একযোগে লড়াই করে সন্ত্রাসবাদকে নির্মূল করার৷’’ মোদীর আরও সংযোজন, এটা খুবই দূর্ভাগ্যজনক কেউ কেউ ‘ভালো’ ও ‘মন্দ’ জঙ্গিদের মধ্যে ফারাক করে বসেন৷