নয়াদিল্লি: নোভেল করোনা ভাইরাসের আক্রমণে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। ভারতেও ক্রমেই বেড়ে চলেছে মারণ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫৬৮৫। এখনও পর্যন্ত কোভিড-19-এর সংক্রমণে দেশে ১৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে, করোনা-মুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরেছেন মোট ৪৭৮ জন।

দেশের মধ্যে মহারাষ্ট্রেই সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১১৩৫। নোভেল করোনায় আক্রান্ত হয়ে মহারাষ্ট্রে এখনও পর্যন্ত ৭২ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনা আক্রান্তের নিরিখে মহারাষ্ট্রের পরেই তামিলনাড়ু।

দক্ষিণের ওই রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৭৩৮। তারপরেই রয়েছে রাজধানী দিল্লি। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দিল্লিতে ৬৬৯ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে দিল্লিতে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

একইভাবে এখনও পর্যন্ত আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে ১১, অসমে ২৮, চণ্ডীগড়ে ১৮, বিহারে ৩৯, ছত্তীসগড়ে ১০ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। নোভেল করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে অন্ধ্রপ্রদেশেও। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অন্ধ্রপ্রদেশে ৩৪৮ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। গুজরাতে ১৭৯, গোয়ায় ৭, হিমাচল প্রদেশে ১৮, জম্মু কাশ্মীরে ১৫৮, লাদাখে ১৪, ঝাড়খণ্ডে ১৩, কর্নাটকে ১৮১, কেরলে ৩৪৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

মধ্যপ্রদেশের জবলপুর বুধবারই করোনা-মু্ক্ত বলে দাবি করে স্থানীয় প্রশাসন। যদিও বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সেই রাজ্য করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২৫৯। একইভাবে মণিপুরে ২, মিজোরামে, ১, ওড়িশায় ৪২, রাজস্থানে ৩৮৩, পঞ্জাবে ১০১, উত্তরপ্রদেশে ৪১০, তেলেঙ্গনায় ৪৪২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

পশ্চিমবঙ্গেও বেড়েছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১২ করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে বলে জানিযেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্যে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৮৩। মারণ ভাইরাসে মোট ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে বাংলায়।