নয়াদিল্লি: চিনের সঙ্গে লাদাখ সীমান্তে সেনা সংঘর্ষের সুযোগ নিচ্ছে পাকিস্তান তাই কাশ্মীরে ফের দানা বাঁধছে জঙ্গি অনুপ্রবেশের আশঙ্কা। ঠিক এরইমাঝে পঙ্গপাল হামলা শুরু হয়েছে পাকিস্তান থেকে, তা নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক ডেকেছে ভারত। এমন খাদ্যসংকটের পরিস্থিতিতে আলোচনায় বসতে সরাসরি অস্বীকার করেছে পাকিস্তান।

বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, মে মাসে ভারতের তরফে দুই দেশের পঙ্গপাল মোকাবিলায় সক্ষম সংস্থাদের ডাকার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। শেষ ৬০ বছরে এই যোগাযোগগুলি তৈরি হয়েছে।

“আমরা ভেবেছিলাম পঙ্গপাল মোকাবিলা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ, এ বিষয়ে পাকিস্তানকে সহযোগিতা করার করার অনুরোধ জানানো হয়েছিল। আমরা পেস্টিসাইড দেওয়ারও কঠা জানিয়েছিলাম”, এও জানান মুখপাত্র। ইতিমধ্যেই পঙ্গপাল অপারেশন চালাতে ভারত ২০ হাজার লিটার পেস্টিসাইড ইরানকে পাঠানো হয়েছে।

‘ডেসার্ট লোকাস্টস’-এর নতুন প্রজনন ক্ষেত্র পাকিস্তান, সেখান থেকেই সংলগ্ন এলাকা দিয়ে রাজস্থানে ঢুকছে পঙ্গপালের দল, এমনটাই জানা গিয়েছিল।

২.৩ কেজি শষ্য একটি পঙ্গপাল প্রতিদিন শেষ করতে পারে। ফলে এর পরিণতি কি হতে পারে, তা রীতিমত চিন্তায় ফেলছে। ৪০ মিলিয়ন পঙ্গপাল ৩৫ হাজার মানুষের খাবার শেষ করতে পারে।

তবে বিশেষজ্ঞরা গবেষণায় দেখেছেন, আফ্রিকা ছাড়াও বালুচিস্তান, ইরান এবং পাকিস্তান থেকেও ভারতে প্রবেশ করছে পঙ্গপালের দল।

এপ্রিল মাসে পাকিস্তান থেকে রাজস্থানে প্রবেশ করেছে পঙ্গপালের দল তারপরেই সেখান থেকে দেশের পশ্চিমের একাধিক জায়গায় তা ছড়িয়ে গিয়েছে। বর্তমানে তা রাজস্থান, গুজরাত, মহারাষ্ট্র, উত্তরপ্রদেশ এবং মধ্যপ্রদেশে সক্রিয়ভাবে উপস্থিত বলেই জানা গিয়েছে কেন্দ্রীয় পরিবেশমন্ত্রকের তরফে।

২.৩ কেজি শষ্য একটি পঙ্গপাল প্রতিদিন শেষ করতে পারে। ফলে এর পরিণতি কি হতে পারে, তা রীতিমত চিন্তায় ফেলছে। ৪০ মিলিয়ন পঙ্গপাল ৩৫ হাজার মানুষের খাবার শেষ করতে পারে।

একটি পরিণত পঙ্গপালের ঝাঁক একদিনে হাওয়ার সঙ্গে ১৫০ কিমি অবধি উড়তে পারে। সতেজ খাবার থেকে নিজের ওজনের খাবার প্রতিদিন খেতে পারে একটি পরিণত পতঙ্গ। এক বর্গ কিলোমিটারে একঝাঁক পতঙ্গ ৩৫ হাজার মানুষের একদিনের খাবার খেয়ে নিতে পারে।

পঙ্গপালের ঝাঁক সব সবুজ সবজি, পাতা, ফুল, কান্ড, ফল, বীজ এবং শস্যের মধ্যে মিলেট, চাল, মেইজ, আখ, বার্লি, তুলো, ফলের গাছ, খেজুর, ঘাস, পাইন, কলা- এই জাতীয় নানা খাবার উদরস্থ করতে পারে।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।