নয়াদিল্লি: দেশে ক্রমেই ভয়ঙ্কর আকার নিচ্ছে করোনাভাইরাস। শেষ ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৩৫ জনের। যার জেরে দেশে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪৯ জন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া খবর অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫০০০ পার করে ফেলেছে। দেশজুড়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫১৯৪।

গত ২৪ মার্চ দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু ১৪ দিন অতিক্রান্ত হয়ে যাওয়ার পরেও দেশে লাফিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের বিজেপি শাসিত বেশ কয়েকটি রাজ্য ইতিমধ্যেই কেন্দ্রকে লকডাউন বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। .

শুধু রাজ্যগুলোই নয় একাধিক বিশেষজ্ঞ কেন্দ্রীয় সরকারকে একই পরামর্শ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর তৈরি ১১ জনের বিশেষ কমিটিকে সেসব পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। যেখানে বেশির ভাগেরই মত লকডাউন বাড়ানোর দিকেই।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, সব রাজ্যের ধর্মীয় স্থান বন্ধ করে দিতে হবে। কোনও ধর্মের ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া যাবে না। স্কুল-কলেজ ও জুন মাস পর্যন্ত বন্ধ রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে আপাতত যেন বদলি বন্ধ রাখা হয়, সেই আর্জিও জানিয়েছে রাজ্যগুলি। হোটেল, রেস্তোরাঁ, বারগুলির ক্ষেত্রেও লকডাউন জারি রাখার কথা বলা হয়েছে। আপাতত কোনও বিয়েবাড়ি, শোকসভা কিংবা কনফারেন্স করা যাবে না বলেও সতর্ক করা হয়েছে।

মঙ্গলবার উপ প্রধানমন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নাইডু বলেন, লকডাউনের শেষ সপ্তাহটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সংক্রমণের তথ্যের উপরই সিদ্ধান্ত নির্ভর করবে বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, লকডাউন বাড়লেও যেন মানুষ একইভাবে সরকারের সঙ্গে সহযোগিতা করেন।