নয়াদিল্লি: স্থির থাকছে না করোনার গ্রাফ (COVID-19)। কখন তা নিম্নমুখী আবার ২৪ ঘণ্টা পরই ঊর্ধ্বমুখী। মঙ্গলবার দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লক্ষ ৩০ হাজারের নিচে নেমে গেলেও বুধবার ফের তা বেড়ে গেল। যদিও সাড়ে ৩ লক্ষের গণ্ডি টপকায়নি আক্রান্তের সংখ্যা। কিন্তু মৃতের সংখ্যা এদিন ফের ৪ হাজারের গণ্ডি পার করেছে।

বুধবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গোটা দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৪৮ হাজার ৪২১ জন। মঙ্গলবারের তুলনায় বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। মঙ্গলবার ৩ লক্ষ ২৯ হাজার ৯৪২ জন আক্রান্ত হয়েছিলেন। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতের সংখ্যা অনেকটাই বেড়েছে। এদিন ফের মৃত্যুর সংখ্যা ৪ হাজারের গণ্ডি টপকালো। মঙ্গলবার যেখানে ৩ হাজার ৮৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছিল সেখানে বুধবার ৪ হাজার ২০৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। কমেছে দৈনিক সুস্থতার হারও। মঙ্গলবার ৩ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮২ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন। অন্যদিকে বুধবার ৩ লক্ষ ৫৫ হাজার ৩৩৮ জন সুস্থ হয়েছেন। এই মুহূর্তে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ কোটি ৩৩ লক্ষ ৪০ হাজার ৯৩৮ জন। সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৭ লক্ষ ৪ হাজার ৯৯ জন। এখনও পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ৯৩ লক্ষ ৮২ হাজার ৬৪২ জন। দেশের করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ২ লক্ষ ৫৪ হাজার ১৯৭ জনের। মোট ১৭ কোটি ৫২ লক্ষ ৩৫ হাজার ৯৯১ জনকে এখনও পর্যন্ত ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার একটি বিবৃতি জারি করে জানানো হয়েছে, যে রাজ্যগুলি থেকে এখন পর্যন্ত সর্বাধিক সংখ্যক কোভিড -১৯ টি মামলার রিপোর্ট পাওয়া যাচ্ছে তাদের করোনার গ্রাফে বক্ররেখা দেখা দিয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে করোনার গ্রাফ আবার মালভূমির আকার ধারণ করেছ। স্বাস্থ্য মন্ত্রক সূত্রে খবর, দেশের ৮২.৭৫ শতাংশ (১ কোটি ৯০ লক্ষ ২৭ হাজার ৩০৪ জন) করোনা রোগী সুস্থ হয়ে উঠছেন। অ্য়াক্টিভ কেসের সংখ্যা ১৬.১৬ শতাংশ (৩৭ লক্ষ ১৫ হাজার ২২১ জন)। ভারতে আগামী কয়েক দিনে করোনার সংক্রমণ কমবে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। কেন্দ্রের তরফে এও জানানো হয়েছে, ৭ মে ভারতে ৪ লক্ষ ১৪ হাজার ১৮৮ জন আক্রান্ত হয়েছিলেন। সেখানে ৯ মে ৪ লক্ষ ৩ হাজার ৭৩৮ জন আক্রান্ত হন। গত ২ দিন আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে। ১০ মে ৩ লক্ষ ৬৬ হাজার ১৬১ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ও ১১ মে ৩ বক্ষ ২৯ হাজার ৯৪২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.