সৌরভ দেব, জলপাইগুড়ি: বন্যপ্রাণীর দেহাংশের আন্তর্জাতিক চোরা চালান রুখতে ভুটান সরকারকে হোয়াটস অ্যাপের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত তথ্য আদানপ্রদানের প্রস্তাব দিল ভারত। সম্প্রতি ভুটানের থিম্পুতে চোরা চালান রুখতে দুই দেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত হওয়া বৈঠকে ভুটান সরকারকে এমনই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। একথা জানালেন উত্তরবঙ্গের অতিরিক্ত মুখ্য বনপাল মন রাম বালুচ।

সম্প্রতি বন্যপ্রাণীদের দেহাংশ চোরাচালানকারীদের একটা দল খুবই সক্রিয়ভাবে কাজ করছে আসাম, ভূটান এবং বাংলা সীমান্ন ধরে। অনেকসময় চোরা চালানকারিরা ধরা পড়লেও দুই দেশের সমন্বয়ের অভাবে অনেক সময় তা প্রশাসনেরর চোখে ফাঁকি দিতে সক্ষম হচ্ছেন। অভিযোগ উঠছে বন্যপ্রাণী পাচার রুখতে ভারত ভুটানের সাথে যোগাযোগের একটা খামতি থেকে যাওয়ায় এই সমস্যা তৈরি হচ্ছে।

মুখ্য বনপাল বলেন বিভিন্ন সময় আটক হওয়া চোরা চালানকারিদের জেরা করে জানা গিয়েছে তারা মূলত অসম থেকে বন্যপ্রাণীর দেহাংশ নিয়ে ভূটানে প্রবেশ করে। ভুটানের কিছু অসাধু ব্যাক্তি তাদের কাছ থেকে সেই সমস্ত অবৈধ সামগ্রী নিয়ে ভারত ভূটান সীমান্ত জয়গাঁ বা সামসি দিয়ে বাংলায় প্রবেশ করে শিলিগুড়িকে করিডোর হিসেবে ব্যাবহার করে নেপালে নিয়ে যায়। নেপাল থেকে সেই সমস্ত অবৈধ সামগ্রী চীনে পাচার হয়। অনেক আমাদের বনদফতরের গঠিত স্পেশাল টাক্স ফোর্সের হাতে ধরা পড়ে চোরা চালানকারিরা। আবার অনেক সময় আবার ভুটানের কাছ থেকে সঠিক তথ্য না পাওয়া যাওয়ায় টাক্সফোর্সের নজরে ফাঁকি দিয়ে তারা নেপালে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

দুই দেশের মধ্যে যাতে এই সমস্ত বিষয়ে তথ্য আদান প্রদানে সমস্যা না হয় তার জন্য সম্প্রতি ভূটানের থিম্পুতে দুই দেশের মধ্যে বৈঠক হয়। সেখানে উত্তরবঙ্গের তিন জেলার জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ প্রশাসন, বনদপ্তরের প্রতিনিধিরা এবং বিভাগীয় কমিশনার উপস্থিত ছিলেন। সেখানে ভুটানকে হোয়াটস অ্যাপের মাধ্যমে চোরা চালান বিষয়ক নিয়মিত তথ্য আদান প্রদানের প্রস্তাব দেওয়া হয়। প্রয়োজনে সেই দেশের বনদফতর, প্রসাশন এবং আমদের এখানকার এই তিন জেলার বনদফতর, পুলিশ এবং প্রশাসনকে নিয়ে হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপ তৈরি করার পরামর্শ দেওয়া হয়। সেই গ্রুপে নিয়মিত তথ্য আদানপ্রাদানের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

আমরা চোরা চালান রুখতে স্পেশাল টাক্সফোর্স তৈরি করে যে সাফল্য পেয়েছি তা সেদিনের বৈঠকে তুলে ধরা হয়। একই ভাবে ভূটানে যাতে স্পেশাল টাক্সফোর্স তৈরি করা যায় সেই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বলে জানান অতিরিক্ত মুখ্য বনপাল।