করাচি: ক্রিকেটবিশ্বের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থার (আইসিসি) বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটির যে কোনও নিয়ম মানতে রাজি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড৷ কিন্তু পিসিবি-র দাবি একটাই ২০১৯ থেকে ২০২৩ সালে আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রামসে(FTP) অন্তর্ভুক্ত করা হোক ভারত-পাক দিপাক্ষিক সিরিজ৷

পাক ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান নাজম শেঠি কলকাতায় অনুষ্ঠিত হওয়া আইসিসির এক্সজিকিউটিভ বোর্ডের মিটিং শেষে দেশে ফিরে পাক সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘পাকিস্তান এফটিপি ডকুমেন্টে শর্তাধীন স্বাক্ষর করেছে৷ আমরা এটা পরিষ্কার করে দিয়েছি, যে আইসিসির বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটির রায় যদি আমাদের পক্ষে যায় তাহলে ভারত অবশ্যই নতুন এফটিপি প্রোগ্রামে আমাদের সঙ্গে দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ খেলবে৷’

 ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলার শর্ত ছাড়াও ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রামে মোট ১২৩টি ম্যাচের দাবি জানিয়েছে পাক ক্রিকেট বোর্ড৷ এ বিষয়ে পাক সংবাদমাধ্যমে শেঠি জানিয়েছেন, ‘যদি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটির রায় আমাদের পক্ষে না যায় সেক্ষেত্রেও নতুন এফটিপিতে আমরা ১২৩টি ম্যাচ পাবো৷ সুতরাং বলা যায় এবারের মিটিংয়ে আমরা ভালো ফল করেছি৷’

দু’দেশের মধ্যে কূটনৈতিক অস্থিরতার কারণে বেশ কয়েক বছর ভারত-পাক দ্বিপাক্ষিক সিরিজ বন্ধ রয়েছে৷ ভারত-পাকিস্তানের সঙ্গে শেষ দ্বি-পাক্ষিক সিরিজে ২০১৩ সালের ডিসেম্বর৷ যদিও ২০১৪ সালে ভারত এবং পাক ক্রিকেট বোর্ডের মধ্যে একটি মৌ স্বাক্ষর হয়েছিল৷ যেখানে বলা হয়েছিল ২০১৫ থেকে ২০২৩-এর মধ্যে ৬টি দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ খেলবে ভারত-পাকিস্তান৷ কিন্তু এই ম্যাচগুলি না-হওয়াতে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে পাক ক্রিকেট বোর্ড৷ এই মর্মে আইসিসির কাছে অভিযোগ জানিয়ে ক্ষতিপূরণ দাবি করেছে পিসিবি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।