নয়াদিল্লি : মোদী বোধ হয় আগেই আভাস পেয়েছিলেন। তাই তেলের দামের উপর এতটা শুল্ক চরিয়ে রেখেছিলেন। যেখানে বিশ্ব বাজারে তেলের দাম এক বোতল জলের চেয়ে কম হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন দেশে তেলের দাম কমেই চলেছে সেখানে ভারতে টানা তিন সপ্তাহ এক জায়গায় দাঁড়িয়ে পেট্রোল ডিজেলের দাম।

মে মাসে তেলের দাম গিয়ে দাঁড়াতে পারে ব্যারেল প্রতি ০ ডলারেরও নীচে। আরও নিখুঁতভাবে বলতে গেলে ০.০১ ডলার প্রতি ব্যারেল। যা, এক বোতল জলের থেকেও কম। এর আগে কখনও এত দাম কমতে দেখা যায়নি। কিন্তু সেই জের ভারতের জ্বালানীর দামে জে পড়বে সেই পূর্বাভাস মিলছে না। আজ মঙ্গলবার ২১ এপ্রিল, কিছুদিন বাদেই মে মাস কলকাতায় পেট্রোলের দাম ৭৩.৩০ টাকা। পশ্চিমবঙ্গের পড়শি তিন রাজ্যে পেট্রোলের দামও স্বস্তিজনক। অসমে পেট্রোলের দাম ৭১.৬১ টাকা, ঝাড়খণ্ডে ৬৮.৭০ ও বিহারে দাম ৭৪.২৫ টাকা প্রতি লিটার। ছত্তিশগড়ে দাম ৭০.৪০ টাকা। এক ধাক্কায় ডিজেলের দাম এক টাকা বেড়ে যায়। এতদিন ৬৪.৬২ থাকার পর ডিজেলের দাম ১৭ দিন আগে ৬৫.৬২ টাকা হয়। শুক্রবারেও ডিজেলের দাম আপাত স্বস্তিই দিচ্ছে। দাম রয়েছে ৬৫.৬২ টাকাই। অসমে ডিজেলের দাম ৬৫.০৭, বিহারে ৬৬.৮২, ছত্তিশগড়ে ৬৭.৫৬, ঝাড়খণ্ডে ৬৩.৫৩ টাকা লিটার প্রতি ডিজেলের দাম। দিল্লিতে ডিজেলের দাম ৬২.২৯ টাকা, যা বহুদিন ধরেই অপরিবর্তিত, পেট্রোলের দাম থমকে ৬৯.৫৯ টাকাতেই। মুম্বইয়ে পেট্রোলের দাম ৭৬.৩১ টাকা, বেঙ্গালুরুতে পেট্রোলের দাম ৭৩.৫৫ টাকা। চেন্নাইয়ে দাম ৭২.২৮ টাকা। দিল্লিতে দাম ৬৯.৫৪ টাকা।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে চাহিদা কমায় তীব্র চাপের মুখে পড়েছে জ্বালানি তেলের বাজার। বিশ্ববাজারে হু হু করে কমছে দাম। যুক্তরাষ্ট্রে তেল সংরক্ষরণাগারগুলো অতিরিক্ত তেলের চাপ আর নিতে পারছে না। এতে দাম আরও কমে যাচ্ছে। গত এক মাস ধরে কম চাহিদার চাপ ও উৎপাদন কমানো নিয়ে তর্কবিতর্ক চলছে তেলের বাজারে। অবশ্য চলতি বছরের শুরু থেকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বাড়ায় নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করে তেলের উপর। মার্চের শেষে ১৮ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমে আসে দাম। এবার মে মাসে সেই প্রভাব আরও বেশি পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ