অ্যান্টিগা: ২০০২ থেকে ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে অপরাজিত টিম ইন্ডিয়া। সুতরাং বৃহস্পতিবার অ্যান্টিগায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরুর আগে প্রথম অধিনায়ক হিসেবে ক্যালিপসোর দেশে দু’টি টেস্ট সিরিজ জয়ের পাশাপাশি কোহলির নজর থাকবে ১৭ বছরের রেকর্ড অক্ষুণ্ণ রাখার দিকেও। পাশাপাশি টি২০ ও ওয়ান-ডে সিরিজে অপরাজিত থেকে জয়লাভ করা টিম ইন্ডিয়ার লক্ষ্য অপরাজিত থেকেই সিরিজ শেষ করা।

মুখোমুখি সাক্ষাতে পিছিয়ে থাকলেও ২০০২ সাল থেকে ক্লাইভ লয়েড, ব্রায়ান লারার দেশের বিরুদ্ধে পাঁচদিনের ক্রিকেট সিরিজ হারেনি ভারত। তা সে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতেই হোক কিংবা উপমহাদেশে। ১৯৪৮-৪৯ থেকে ভারত-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যে এযাবৎ খেলা হয়েছে ২৩টি টেস্ট সিরিজ। যারমধ্যে ক্যারিবিয়ানদের জয় ১২টি’তে, ভারত জিতেছে ৯টি সিরিজ। ১৯৭১ সালে অজিত ওয়াদেকারের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দল স্যার গ্যারফিল্ড সোবার্সের নেতৃত্বাধীন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রথম কোনও টেস্ট ম্যাচে পরাজিত করে।

শুধু তাই নয়, পাঁচ ম্যাচের সেই সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টটি জিতে সিরিজেও কব্জা করে নিয়েছিল টিম ইন্ডিয়া। সিরিজের বাকি চারটি ম্যাচ নিষ্ফলা ড্র হওয়ায় সিরিজে ঐতিহাসিক জয় পায় ভারত। তবে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে দ্বিতীয়বার টেস্ট সিরিজ জিততে এরপর দীর্ঘ ৩৫ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছিল ভারতকে। ২০০৬ চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম তিন ম্যাচ ড্র হওয়ার পর চতুর্থ ম্যাচে কাঙ্খিত জয় পায় ভারতীয় দল। অধিনায়ক রাহুল দ্রাবিড়ের জোড়া ইনিংসে অর্ধশতরান, পাশাপাশি কুম্বলে-হরভজনের ভেল্কিতে শেষ ম্যাচ জিতে সিরিজে বাজিমাত করে ভারতীয় দল।

এরপর ২০১১ মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে জয় ২০১৬ কোহলির দলকে অনুপ্রেরণা জোগায় সিরিজ জয়ে। অধিনায়ক হিসেবে বছর তিনেক আগে প্রথম ক্যারিবিয়ান সফরে টেস্ট সিরিজে কোহলির জয়ের ব্যবধান ছিল ২-০। অর্থাৎ প্রথম অধিনায়ক হিসেবে কোহলির সামনে দ্বিতীয়বার সিরিজ জয়ের হাতছানি। পাশাপাশি স্যার ভিভ রিচার্ডস ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচ জয়ের সঙ্গে সঙ্গে অচিরেই অধিনায়ক হিসেবে আরও একটি নজির স্পর্শ করবেন বিরাট।

অ্যান্টিগায় জয় মানে ম্যাচ জয়ের নিরিখে দেশের সফলতম অধিনায়ক হিসেবে মহেন্দ্র সিং ধোনির সঙ্গে একাসনে বসে পড়বেন কোহলি। টেস্ট ক্রিকেটে সফলতম অধিনায়ক হিসেবে সর্বাধিক ২৭ ম্যাচ জয়ের নজির রয়েছে ধোনির ঝুলিতে। সেক্ষেত্রে অ্যান্টিগায় জয় হাসিল করতে পারলে অধিনায়ক হিসেবে ২৭ ম্যাচ জিতে ধোনির রেকর্ডে থাবা বসাবেন কোহলি। তাও আবার ১৭টি কম ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েই। পাশাপাশি ভারত যদি এই সিরিজে ২-০ ব্যবধানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারাতে পারে, তাহলে ধোনিকে ছাপিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে সফলতম অধিনায়ক হিসেবে নাম তুলে ফেলবেন বিরাট।

তাই একাধিক নজির সেইসঙ্গে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শুরুতেই দলনায়ক বিরাট ও তাঁর দলকে ঘিরে একাধিক প্রত্যাশা দেশের ক্রিকেট অনুরাগীদের।