নয়াদিল্লি: প্রত্যেকদিনই সংক্রমণের হার একটু একটু করে বাড়ছে। রবিবারও ৬৫০০-এর বেশি মানুষ নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছে। বিশ্বে অন্যান্য আক্রান্ত দেশের মধ্যে ভারত এখন ১০ নম্বরে।

এতদিন পর্যন্ত ১১ নম্বরে ছিল ভারত। এবার তালিকায় আরও এক ধাপ উপরে উঠে এল। ইরানকেও পিছনে ফেলে দিল ভারত।

একই ভাবে দেশের মধ্যে সংক্রমণে শীর্ষে রয়েছে মহারাষ্ট্র। নতুন আক্রান্ত ৩০৪১। শুধু মুম্বইতেই ১৭২৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। ওই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫০,০০০। মুম্বইতে ছাড়িয়ে গেল ৩০,০০০।

রবিবার নতুন করে সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে দেশের ২৬ টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে। তামিলনাড়ুতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৭৬৫ জন। চেন্নাইতে নতুন করে ৫৮৭ জন আক্রান্তের হদিশ পাওয়া গিয়েছে। ১০,০০০ ছাড়িয়ে গেল সেই রাজ্যের মোট আক্রান্তের সংখ্যা।

এদিকে আমফান বিধ্বস্ত বাংলাতেও উঠে এল ভয়াবহ ছবি। একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের হদিশ পাওয়া গেল রবিবার।

২৪ ঘন্টায় মৃতের সংখ্যা কমলেও, বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা৷ বাংলায় একদিনে করোনা আক্রান্ত ২০০ ছাড়াল৷ একদিনে যা এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৷ নতুন করে মৃত্যু হয়েছে তিন জনের৷

রবিবার সন্ধ্যায় রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিনে প্রকাশ, গত ২৪ ঘন্টায় ২০৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন৷ ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৩,৬৬৭ জনে৷ অন্যদিকে এদিনে ৯,২১৬ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যা এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ৷ বর্তমানে রাজ্যে সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে ৩৩টি পরীক্ষাগারে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে৷ এর আগে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ছিল ১৫৬ জন৷ এবার সেই রেকর্ড ভেঙ্গে গেল বাংলায়৷

গত ২৪ ঘন্টায় ২০৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন৷ তবে স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, একদিনে ৯,২১৬ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যা এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ৷ তার জন্য একদিনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যাটাও বেড়েছে৷ এই পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১ লক্ষ ৩৮ হাজার ৮২৪ জনের৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.