ভুবনেশ্বর: অগ্নি-৫ ব্যালিস্টিক মিসাইল পরীক্ষা করতে একেবারে শেষ পর্যায়ের প্রস্তুতি চলছে ভারতের। ওড়িশার হুইলার দ্বীপ থেকে অবশেষে এর চূড়ান্ত পরীক্ষা করা হবে বলে জানা গিয়েছে। প্রায় দু’বছর পর পরীক্ষা হচ্ছে এই মিসাইল।

প্রতিরক্ষামন্ত্রক সূত্রে খবর, ডিসেম্বরের শেষ বা জানুয়ারির শুরুতেই পরীক্ষা করা হবে এই পারমাণবিক মিসাইলের। সূত্রের খবর, অগ্নি ফাইভের সামান্য প্রযুক্তিগত কিছু ত্রুটি রয়েছে। সেগুলোর সমাধান হয়ে গেলেই চূড়ান্ত পরীক্ষা করা হবে। প্রসঙ্গত, এনএসজি বা নিউক্লিয়ার সাপ্লায়ার গ্রুপে যোগ দেওয়ার আগে নিজেদের সমস্ত ত্রুটি মুছে ফেলতে চাইছে ভারত। ২০১৫-র জানুয়ারিতে যখন শেষবার অগ্নি-৫ মিসাইল পরীক্ষা করা হয়েছিল, তখন এর কিছু ইন্টারনাল ব্যাটারি ও ইলেক্ট্রনিক কনফিগারেশনগত ত্রুটি ছিল। সেই সমস্ত কিছু সমাধান করেই এগোতে চাইছে ভারত।

ভারতের বহু প্রতীক্ষিত অগ্নি ফাইভের চতুর্থ পরীক্ষা যদি সফল হয়, তাহলে এই ক্ষেপণাস্ত্র চিনের উত্তরপ্রান্ত পর্যন্ত আক্রমণ চালাতে পারবে বলে জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য, এটা হল তিনটি স্তর বিশিষ্ট অগ্নি ফাইভ ক্ষেপণাস্ত্রের চূড়ান্ত পরীক্ষা, এরপরই স্ট্র্যাটেজিক ফোর্স কম্যান্ডে এই মিসাইলের পরীক্ষামূলক ব্যবহার শুরু হবে। প্রসঙ্গত, ২০০৩ সালে এসএফসি প্রতিষ্ঠিত হয় ভারতের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার সামলানোর জন্যে। সূত্রের খবর, এই পরমাণু অস্ত্র বেশি সংখ্যায় তৈরির আগে অন্তত আরও দু’বার পরীক্ষা করা হবে।

এপ্রিল ২০১২-এ ওপেন কনফিগারেশনে পরীক্ষা করা হয় অগ্নি-ফাইভের। এরপর ২০১৩ সালে ফের দ্বিতীয়বার পরীক্ষা হয় এই পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের। তারপর তৃতীয়বার পরীক্ষা করা হয় ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে। শেষবার এই ক্ষেপণাস্ত্রের কেনেস্তারা ভার্সানে উৎক্ষেপণ করা হয়। জানা গিয়েছে এটাই অস্ত্রটিকে আরও মারাত্মক করে দিয়েছে, কারণ এর সাহায্যে ভারতের যে কোনও প্রান্ত থেকে হামলা চালানো যাবে এই ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে।