নয়াদিল্লি: প্রতিরক্ষায় ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক রয়েছে ফ্রান্সের। রাফায়েল আসছে সেই দেশ থেকেই। এছাড়া নৌবাহিনীতেও ফরাসি সংস্থার তৈরি যুদ্ধযান আনা হয়েছে আগে। তবে এবার আকাশে মুখোমুখি হচ্ছে দুই দেশ।

সবথেকে বড় ওয়ার গেম শুরু হচ্ছে ভারত ও ফ্রান্সের মধ্যে। ফরাসি এয়ারবেস থেকেই উড়বে দুই দেশের যুদ্ধবিমান। চলতি মাসের শেষের দিকে ‘গরুড়-৬’ নামে সেই যুদ্ধ মহড়ায় অংশ নেবে ফ্রান্সের রাফায়েল ও ভারতের সুখোই। জানা গিয়েছে ১৫০-র বেশি এয়ার ফোর্স অফিসার অংশ নেবেন এই মহড়ায়।

রাফায়েল, সুখোই ছাড়াও এই মহড়ায় আকাশে উড়বে আইএল-৭৮ মিড এয়ার রিফুয়েলিং ট্যাংকার।

১৯৯৮ তে দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সহযোগিতার চুক্তি হয়। প্রত্যেক দু’বছর অন্তর এই ‘গরুড়’ মহড়া হয়ে আসছে। ২০০৩ থেকে শুরু হয়েছে এই মহড়া। প্রথম বারে মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়রে অনুষ্ঠিত হয়েছিল সেই মহড়া। আর এর আগে পঞ্চম বার ‘গরুড়-৫’ হয় ভারতের যোধপুর এয়ার ফোর্স স্টেশনে। আর এবার হবে ফ্রান্সে।

এদিকে, চলতি বছরের খবর, ফ্রান্সের থেকে ৩,০০০-এরও বেশি মিলান 2T অ্যান্টি ট্যাংক গাইডেড মিসাইল কিনতে চলেছে ভারতীয় সেনা৷ প্রায় ১,০০০কোটি টাকার চুক্তি হয়েছে দুই দেশের মধ্যে। আর তার ভিত্তিতেই এই এই মিসাইল আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে৷

জানা গিয়েছে, ভারতীয় সেনার প্রায় ৭০,০০০ অ্যান্টি ট্যাংক গাইডেড মিসাইল (ATGM) প্রয়োজন এবং বিভিন্ন ধরণের ৮৫০ লঞ্চার প্রয়োজন এবং সেই সঙ্গে থার্ড জেনারেশন ATGM কেনার পরিকল্পনায় রয়েছে ভারতীয় সেনা৷

এদিকে এই ফ্রান্স থেকেই ভারতে আসবে রাফায়েল। নির্বাচনে যে রাফায়েলকে হাতিয়ার করতে চেয়েছিলেন বিরোধীরা। যদিও তাতে চুক্তিতে কোনও প্রভাব পড়েনি।

মাস কয়েক আগে ভারতে এসে এই রাফায়েল প্রস্তুতকারী সংস্থা ড্যাসল্টের সিইও বলে যান, ‘ভারত চাইলে আমরা ১০০ টা রাফায়েল দিতে পারি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ভারতে ৩৬টি রাফায়েল ডেলিভার করব। ভারত যদি চায় তাহলে আরও বেশি রাফায়েলও দিতে পারি। তিনি আরও বলেন, ‘রাফায়েল নিয়ে কোনও বিতর্ক নেই। আগামী দু’বছরের মধ্যে ৩৬টি জেট ডেলিভার করা হবে ভারতে।’ চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে আসবে প্রথম বিমান। এরপর প্রত্যেক মাসে আসবে একটি করে বিমান।

রাফায়েল চুক্তি নিয়ে প্রায় বছর খানেক ধরেই প্রশ্ন তুলে আসছিলেন রাহুল গান্ধী। লোকসভায় বিতর্ক থেকে রাফায়েল মামলা গড়িয়েছে সুপ্রিম কোর্টেও।