নয়াদিল্লি: ১১ মে তারিখটি জাতীয় প্রযুক্তি দিবস হিসেবে পালিত হয়ে থাকে৷ যার অন্যতম কারণ হল ১৯৯৮ সালে ১১ মে তারিখেই রাজস্থানের পোখরানে সফল ভাবে পরমাণু বোমা পরীক্ষা করেছিল ভারত৷ যা ছিল ভারতের দ্বিতীয় পরমাণু পরীক্ষা৷ আজ থেকে ঠিক ২১ বছর আগে সেই সাফল্য দেখেচিল ভারত

ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন ভারতীয় বিজ্ঞানীরা৷ প্রথম ভারতীয় পরমাণু বোমা পরীক্ষা হয় ১৯৭৪ সালে৷ যার কোড নাম ছিল ‘স্মাইলিং বুদ্ধ’।

সেই পোখরান ২ পরমাণু পরীক্ষা সম্পর্কে রইল পাঁচটি বিশেষ তথ্য:

১৷ ১৯৯৮ সালে পোখরানে দ্বিতীয় পরমাণু পরীক্ষায় পরপর পাঁচটি পারমাণবিক বোমা পরীক্ষা চালিয়েছিল ভারতীয় বিজ্ঞানীরা৷

২৷ পোখরানে দ্বিতীয় পরমাণু পরীক্ষায় যে পাঁচটি পরমাণু বোমা ভারত উৎক্ষেপণ করেছিল তারমধ্যে প্রথমটি ছিল শক্তিশালী হাইড্রোজেন বোমা৷ বাকিগুলি ছিল কম শক্তিশালী পরমাণু বোমা৷

৩৷ এই পরমাণু পরীক্ষার পরে ভারতের বিপক্ষে চলে যায় আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে প্রাধান্য পাওয়া বেশকিছু দেশ৷ যার মধ্যে অন্যতম আমেরিকা ও জাপান৷

৪৷ ১৯৯৮ সালে ১১ মে পোখরানে ‘অপারেশন শক্তি’র দু’দিন পরেও অর্থাৎ ১৩ মে সেখানে পরীক্ষা করা হয়েছিল দুটি পরমাণু বোমা৷ এরপরেই তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী সাংবাদিক সম্মেলন করে ভারতকে পারমাণবিক রাষ্ট্র বলে ঘোষণা করেন৷

৫৷ এই পরমাণু পরীক্ষার একাধিক নাম দেওয়া হয়েছিল৷ যার মধ্যে অন্যতম ‘শক্তি-৯৮’৷ এছাড়া পরমাণু বোমাগুলির নাম ছিল যথাক্রমে শক্তি-১,২,৩,৪,৫৷