ফাইল ছবি

লাদাখ: বিগত বেশ কয়েকমাস ধরে আলাপ আলোচনার পরেও চিনের সঙ্গে সীমান্তে উত্তেজনা এখনও বর্তমান। এহেন পরিস্থিতিতে একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, পূর্ব লাদাখে যে কোনও চিনা পদক্ষেপের মোকাবিলার জন্য ট্যাঙ্ক রেজিমেন্ট মোতায়েন করেছে ভারতীয় বাহিনী।

এই রেজিমেন্টে রয়েছে ভীষ্ম এবং অর্জুন সহ অনেক আধুনিক ট্যাঙ্ক যা কিনা কয়েক মুহুর্তেই শত্রুদের উড়িয়ে দিতে পারে। তথ্য বলছে এই ট্যাঙ্কগুলির যে কোনও আবহাওয়ায়, যে কোনও পরিস্থিতিতে যুদ্ধ করার ক্ষমতা রাখে।

প্রকৃতপক্ষে সমতল এলাকাতেই যুদ্ধের জন্য ট্যাঙ্ক মোতায়েন করা হয়। কিন্তু এখানে লাদাখ পার্বত্য এলাকা। তবে LAC তে একটি মালভূমি রয়েছে। যেখানে ট্যাঙ্কগুলি সহজেই চালানো যেতে পারে এবং যুদ্ধও করা যেতে পারে। বলা হচ্ছে এই পদক্ষেপে ভারত লাদাখে নিজের অবস্থান আরও মজবুত করে তুলল।

লাদাখে ভারতীয় সেনার এক আধিকারিক জানিয়েছেন, সীমান্ত রক্ষার জন্য ট্যাঙ্কের পাশাপাশি পদাতিক যোদ্ধা গাড়িও মোতায়েন করা হয়েছে। সেনারা যে যে কোনও পরিস্থিতিতে মাতৃভূমি রক্ষার জন্য তৈরি তাও জানান তিনি।

অবশ্য এমনিতেই রাফায়েল নিয়ে যথেষ্ট আশঙ্কিত হয়ে রয়েছে চিন। এই যুদ্ধ বিমান ভারতের হাতে আসার পর থেকেই লাদাখে বদলেছে পরিস্থিতি। একদিকে রাফায়েল হাতে পাওয়ার পর যেমন এই যুদ্ধ বিমান দিয়ে লাদাখে পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা হচ্ছে। অন্যদিকে মিগ-২১, তেজস সহ একাধিক যুদ্ধবিমানকেও এই কয়েকমাসে কাজে লাগিয়েছে ভারত। যুদ্ধবিমান ছাড়াও অ্যাপাচি হেলিকপ্টার এবং চিনুক হেলিকপ্টারগুলিও সেনাবাহিনীকে নানান দরকারি জিনিস পৌঁছে দিতে এই মুহূর্তে সহায়তা করছে। যার জেরে সেনাদের রেশ্ন ও অন্যান্য উপকরণের কোনও কমতি নেই।

এর সঙ্গে আবার ভারতীয় বিমানবাহিনী জানিয়ে দিয়েছে তাঁরা পাকিস্তান ও চিনের সঙ্গে একসঙ্গে ডিল করতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত। ফলে চাপ বেড়েছে চিনের। ভারতীয় বায়ুসেনা যে কোনও পরিস্থিতির জন্য তৈরি আছে। দিনরাত চিন ও পাকিস্তানের ওপর কড়া নজরদারি চালাচ্ছে ভারতীয় বায়ুসেনা।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।