লন্ডন: প্রস্তুতি ম্যাচেই বেরিয়ে পড়ল ভারতীয় ব্যাটিংয়ের কঙ্কালসার চেহারাটা। দ্য ওভালে ট্রেন্ট বোল্ট, জিমি নিশমদের সামনে মুখ থুবড়ে পড়ল ধাওয়ান-রোহিত-কোহলি সমৃদ্ধ ‘ফেভারিট’ ভারতের ব্যাটিং লাইন আপ। শেষমেষ জাদেজার অর্ধশতরানে ভর করে কিছুটা মুখরক্ষা মেন ইন ব্লু’র। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে মাত্র ৩৯.২ ওভারে ১৭৯ রানে গুটিয়ে গেল টিম ইন্ডিয়া।

বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচ বলে কথা। মেগা ইভেন্টের জন্য কতটা প্রস্তুত বিরাট অ্যান্ড কোম্পানি, সেদিকেই নজর ছিল দেশের ক্রিকেট অনুরাগীদের। কিন্তু আইপিএল ফিভার কাটিয়ে লম্বা ফর্ম্যাটের জন্য প্রস্তুত নয় টিম ইন্ডিয়া। অন্তত প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচ জানান দিয়ে গেল সেই কথাই। মেগা ইভেন্টের মহড়া হিসেবে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে টসভাগ্য সঙ্গ দেয় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির। টস জিতে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

তবে প্রস্তুতি ম্যাচে স্কোয়াডে থাকা ১৫ জন ক্রিকেটারকেই ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে দেখে নেওয়ার সুযোগ থাকলেও, বিরাট সেই সুযোগ পেলেন না এদিন। শুক্রবার দ্বিতীয় দিনের নেট সেশনে  ডান হাতে চোট পাওয়ায় অল-রাউন্ডার বিজয় শংকরকে ছাড়াই প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে নামছে ভারতীয় দল। পাশাপাশি টুর্নামেন্টের মূলপর্বের কথা মাথায় রেখে চোট সারিয়ে দলের সঙ্গে যোগ দেওয়া কেদার যাদবকেও খেলানোর ঝুঁকি নেয়নি টিম ম্যানেজমেন্ট।

কিউয়ি পেসার ট্রেন্ট বোল্টের বিধ্বংসী স্পেলে প্রথম ১০ রানেই দুই ওপেনার রোহিত শর্মা ও শিখর ধাওয়ানের উইকেট হারায় ভারতীয় দল। দুই ওপেনারেরই সংগ্রহ মাত্র ২। এরপর দলীয় ২৪ রান ও ব্যক্তিগত ৬ রানে সেই বোল্টেরই শিকার হন বহু চর্চিত চার নম্বরে নামা কেএল রাহুল। মাত্র ২৪ বলের বেশি দীর্ঘস্থায়ী হল না কোহলির ব্যাট। আইপিএলে সতীর্থ কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের ডেলিভারিতে ১৮ রানে ক্লিন বোল্ড হলেন ভারত অধিনায়ক।

এরপর পঞ্চম উইকেটে হার্দিক পান্ডিয়া-এম এস ধোনি জুটি প্রাথমিক ক্ষতে কিছুটা প্রলেপ দেওয়ার চেষ্টা করেন। জুটিতে ৩৮ রান ওঠার পর ব্যক্তিগত ৩০ রানে নিশমের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন পান্ডিয়া। এরপর ১৭ রানে ফেরেন ধোনি। কার্তিক ও ভুবনেশ্বরের সংগ্রহে যথাক্রমে ৪ এবং ১ রান। ১১৫ রানে ৮ উইকেট খুঁইয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া ভারতীয় ব্যাটিং লাইন আপকে স্বস্তি দেয় নবম উইকেটে জাদেজা-কুলদীপের পার্টনারশিপ।

প্রথম সারির ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং বিপর্যয়ের মাঝেই টেল-এন্ডার কুলদীপকে সঙ্গে নিয়ে দুরন্ত অর্ধশতরান করেন জাদেজা। একইসঙ্গে নবম উইকেটে ৬২ রানের পার্টনারশিপ কিছুটা সম্মানজনক অবস্থায় পৌঁছে দেয় দলের রান। ৬টি চার ও ২টি ছয়ের সাহায্যে জাদেজার ৫০ বলে ৫৪ ও শেষদিকে কুলদীপের গুরুত্বপূর্ণ ১৯ রানের অবদানে ভর করে ১৭৯ রান তুলতে সক্ষম হয় টিম ইন্ডিয়া।

বোল্টের ৪ উইকেট ও নিশমের ৩ উইকেটি মূলত ধসিয়ে দেয় ভারতীয় দলের ব্যাটিং লাইন আপ-কে। প্রস্তুতি ম্যাচে ৪০ ওভারও ব্যাট করতে না পারায় মেগা ইভেন্টের আগে নতুন করে ভাবাবে থিঙ্ক-ট্যাঙ্ককে।