নয়াদিল্লি: ভুটানের হাইড্রোলিক প্রজেক্টের কাজ কতদূর এগোল, সেই প্রসঙ্গেই ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং-এর সঙ্গে আলোচনা সারলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

শুক্রবার যৌথ সাংবাদিক বৈঠকে মোদী বলেন, ”ভারত ও ভুটানের দীর্ঘদদিনের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এই হাইড্রোলিক প্রজেক্টের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে।” এই প্রজেক্টের ভারত আর্থিক সাহায্য করেছে।

নিরাপত্তা, সীমান্ত সুরক্ষা, বাণিজ্য, অর্থনীতি, হাইড্রোইলেকট্রিসিটি ও জলসম্পদ সহ একাধিক ক্ষেত্রে ভারত ও ভুটানের যৌহ উদ্যোগ রয়েছে। ভারতের সাহায্যে ভুটানে তিনটি হাইড্রোলিক প্রজেক্ট তৈরি করা হয়েছে, যার মোট ক্ষমতা ১৪১৬ মেগাওয়াট। এর মধ্যে তিন চতুর্থাংশ বিদ্যুৎ যোগান দেওয়া হয় ভারতে। আর বাকিটা ভুটান ব্যবহার করে। কিছুদিনের মধ্যেই ভুটান Rupay কর্ড নিয়ে আসবে। সেই খবরে খুশি প্রধানমন্ত্রী মোদী।

ফাইল ছবি

ভারত ও ভুটানের কূটনৈতিক সম্পর্কের সুবর্ণ জয়ন্তী এগিয়ে আসছে। সেইজন্যই মূলত মোদীর সঙ্গে দেখা করেছেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী। তিনি মোদীকে ভুটানে আমন্ত্রণও জানান।

শুক্রবার তিনদিনের সফরে ভারতে এসেছেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী।

২৭ থেকে ২৯ ডিসেম্বর, এই তিন দিনের সফরে এসেছেন শেরিং। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এবং উপরাষ্ট্রপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডুর সঙ্গেও দেখা করার কথা তাঁর। ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এবং অন্যান্য মন্ত্রীরাও ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করবেন। উভয় দেশের পক্ষ থেকেই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক ও দ্বিপাক্ষিক আদান-প্রদান, মানব বন্ধন, অর্থনীতি এবং জলবিদ্যুত্‍ নিগম উন্নত করার বিষয়ে আলোচনা করা হবে। ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর এই সফরের মাধ্যমে উভয় দেশের কাছেই বহুমুখী অংশীদারিত্বের সুযোগ খুলে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে বলে খবর।

শেরিংয়ের আসন্ন আগমনে বন্ধুত্ব ও সহযোগিতার দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্ক প্রসারিত করার উপায় আলোচনা হবে বলেও জানানো হয়েছে ওই বিবৃতিটিতে। ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখেলের ভুটান সফরের এক মাস পরই শেরিংয়ের এই ভারত সফর।