ধরমশালা: দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের সিরিজ দিয়ে টি-২০ বিশ্বকাপের প্রস্তুতি শুরু করছে কোহলি অ্যান্ড কোং৷ রবিবার প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে বিরাটদের প্রথম ম্যাচ ধরমশালায়৷

২০২০ অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে বসছে টি-২০ বিশ্বকাপের আসর৷ বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে কম্বিনেশনের পথে নেমে পড়েছে টিম ইন্ডিয়া৷ ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধেও খেলছেন না মহেন্দ্র সিং ধোনি৷ ২০০৭ টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম সংস্করণে ধোনির হাত ধরেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ভারত৷ জো’বার্গে রুদ্ধশ্বাস ফাইনালে পাকিস্তানকে হারিয়ে প্রথম টি-২০ বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ‘মেন ইন ব্লু’৷

জুলাইয়ে ইংল্যান্ডের মাটিতে ৫০ ওভারের বিশ্বকাপের পর সদ্যসমাপ্ত ক্যারিবিয়ান সফরে তিন ফর্ম্যাটেই সিরিজ জিতেছে বিরাটবাহিনী৷ এবার ঘরের মাঠে প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে সিরিজ জয় লক্ষ্য কোহলিদের৷ ধরমশালায় হিমাচল প্রদেশ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অবশ্য শনিবার বৃষ্টির জন্য প্র্যাকটিস করতে পারেননি বিরাটরা৷ ফলে এদিন ইন্ডোরেই প্র্যাকটিস সারেন টিম ইন্ডিয়ার ক্রিকেটাররা৷

এই সিরিজ থেকেই ব্যাটিং কোচ হিসেবে দলের সঙ্গে দিয়েছেন বিক্রম রাঠোর৷ সঞ্জয় বাঙ্গারের উত্তরসূরি হিসেবে বিরাট-রোহিতদের ব্যাটিং পরামর্শ দেবেন টিম ইন্ডিয়ার এই প্রাক্তন ওপেনার৷ এদিন ইন্ডোরে শিখর ধাওয়ান, শ্রেয়স আইয়ারদের ব্যাটিং টিপস দিতে দেখা গেল রাঠোরকে৷

২০২০ টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য দল গড়তে আগামী ১৩ মাসে অনেক কাঁটাছেঁড়া করতে হবে বিরাট-শাস্ত্রীদের৷ চার নম্বর ব্যাটিং পজিশনে লড়াই হবে শ্রেয়স আইয়ার ও মনীশ পান্ডের মধ্যে৷ গত কয়েক বছর ধরেই দলের সঙ্গে ঘুরছেন মনীশ৷ কিন্তু ধারাবাহিকতার অভাবে কখনও বাদ পড়েছেন, আবার কখনও ঘরোয়া ক্রিকেটে পারফর্ম করে দলে ফিরেছেন কর্নাটকের এই ডানহাতি৷ তবে গত আইপিএলে দিল্লি ক্যাপিটালকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন আইয়ার৷ সদ্য সমাপ্ত ক্যারিবিয়ান সফরে ওয়ান ডে সিরিজে দারণ পারফর্ম করেছেন দিল্লির এই ডানহাতি৷

তবে সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে দুই রিস্ট স্পিনার কুলদীপ যাদব ও যুবেন্দ্র চাহালকে ছাড়াই মাঠে নামছে ভারত৷ এদের জায়গায় লেগ-স্পিনার রাহুল চাহার এবং অফ-স্পিনার ওয়াশিংটন সুন্দরের৷ এছাড়াও পেসার হিসেবে বিরাট-শাস্ত্রীর সামনে দেখে নেওয়ার সুযোগ থাকছে দীপক চাহার, নভদীপ সাইনি ও খলিল আহমেদদের৷ জসপ্রীত বুমরাহের অনুপস্থিতিতে ভারতীয় পেস বোলিংকে নেতৃত্ব দেবেন দীপক৷