ঢাকা: আসন্ন বুদ্ধ পূর্ণিমায় জঙ্গি হামলার আশঙ্কা রয়েছে৷ এই বিষয়ে ভারতীয় গোয়েন্দা বিভাগ ও বাংলাদেশ পুলিশের মধ্যে তথ্য আদান প্রদান প্রদান করা হয়েছে৷ ইসলামিক স্টেট জঙ্গি সংগঠনের তরফে বাংলায় পোস্টার দিয়ে হামলার কথা বলা হয়৷ তারপরেই পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে হামলার আশঙ্কায় বিভিন্ন মঠের নিরাপত্তা বাড়িয়ে দেওয়া হয়৷ নাশকতা রুখতে প্রস্তুত ব়্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন, সোয়াট, পুলিশের জঙ্গি দমন শাখা সিটিটিসি৷ প্রয়োজনে সেনাবাহিনীকেও নামানো হতে পারে৷

বাংলাদেশের আইজি জাবেদ পাটোয়ারী জানিয়েছেন, আত্মঘাতী হামলার লক্ষ্যবস্তু করা হতে পারে পুলিশকে৷ জঙ্গি হামলা রুখতে জারি হয়েছে সতর্কতা৷ বাংলাদেশের আড়াই হাজার বৌদ্ধ মন্দির ঘিরে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, সুনির্দিষ্ট হুমকি না থাকলেও নিরাপত্তা নিয়ে সব ধরনের সতর্কতা ও প্রস্তুতি রয়েছে।

বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশে সোশ্যাল সাইটে উস্কানিমূলক পোস্ট থেকে গোষ্ঠী সংঘর্ষ ছড়ায়৷ সেই দিকটিতে বিশেষ নজর রাখা হয়েছে৷ বুদ্ধ পূর্ণিমাকে নিয়ে কোনও গোষ্ঠী গুজব বা বিভ্রান্তি ছড়াতে না পারে সে জন্য গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন মঠ ও বৌদ্ধ বিহারে দর্শনার্থীদের জন্য থাকছে একগুচ্ছ নিয়ম৷

বাংলাদেশের অন্যতম বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের স্থান হল চট্টগ্রাম বিভাগ৷ বিখ্যাত রাঙ্গামাটি ও রামু বৌদ্ধ বিহারে জারি হয়েছে বিশেষ সতর্কতা৷ একই রকম নিরাপত্তার বলয়ে ঘেরা রয়েছে ঢাকা ও গোপালগঞ্জের বিভিন্ন মঠ৷ নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখতে পুলিশের সব ইউনিট প্রধান এবং বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন আইজি জাবেদ পাটোয়ারী৷ নিরাপত্তার কারণে এবার বুদ্ধ জয়ন্তী অনুষ্ঠানে নিষিদ্ধ করা হয়েছে আতশবাজি। উড়ানো যাবে না ফানুস৷

বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে ১৭ মে শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ বৌদ্ধ সাংস্কৃতিক পরিষদের উদ্যোগে শান্তি শোভাযাত্রা বের হবে। শোভাযাত্রাটি শাহবাগের জাতীয় জাদুঘর থেকে শুরু হয়ে জাতীয় প্রেসক্লাবে গিয়ে শেষ হবে। শনিবার সকালে ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহার আয়োজিত শান্তি শোভাযাত্রা ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহার থেকে শুরু হয়ে বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়াম-কমলাপুর হয়ে পুনরায় বৌদ্ধ মহাবিহারে গিয়ে শেষ হবে। শোভাযাত্রায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতেও কিছু নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ।

নিরাপত্তা সংক্রান্ত আলোচনায় ছিলেন বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধি, ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারের মহাসচিব পি. আর. বড়ুয়া, বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশনের নির্বাহী সভাপতি অশোক বড়ুয়া, বৌদ্ধ কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি ও সংরক্ষিত মহিলা আসন-৯ এর সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা, বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের সহসভাপতি প্রমথ বড়ুয়া, বাংলাদেশ বৌদ্ধ সমিতি ঢাকা অঞ্চলের সাধারণ সম্পাদক স্বপন বড়ুয়া চৌধুরী, বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশনের জেনারেল সেক্রেটারি ভিক্ষু সুনন্দপ্রিয়, বাংলাদেশ বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের বোর্ড অব ট্রাস্টি ডালিম কুমার বড়ুয়া৷