সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়: ভারত এবং অ্যাডিলেড, যেন ‘made for each other’। গত ২৫ বছরে বিদেশের মাটিতে এটাই সেই মাঠ যা ভারতকে দু-হাত ভরে দিয়ে যাচ্ছে। টেস্ট, একদিনের ম্যাচ থেকে শুরু করে টি-২০, বিদেশে বিভুয়ের এই মাঠ যেন ভারতকে খালি হাতে ফেরায় না। রেকর্ডই বলে দিচ্ছে সেই কথা।

মঙ্গলবার অ্যাডিলেড ওভালে দ্বিতীয় ওয়ান ডে জিতে তিন ম্যাচের সিরিজে সমতা ফিরিয়েছে ভারত। বিরাটের সেঞ্চুরির পাশাপাশি ছিল মহেন্দ্র সিংহ ধোনির নিন্দুকদের মুখের উপর জবাব দেওয়ার মতো ইনিংস। ক্যাঙ্গারুদের দেশে এই মাঠের সঙ্গে ভারতের প্রেম যেন গভীর থেকে গভীরতর হচ্ছে। বিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া হোক কিংবা অন্য কোনও দেশ, ক্রিকেট দেবতা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই যেন ভারতের নামের পাশে ‘জয়ী’ কথাটা লিখে রেখেছে। কিংবা কোনও ম্যাচ হারলেও তা ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম সেরা লড়াই করা ম্যাচের তালিকায় থেকে গিয়েছে।

যদি গত ২৫ বছরে অ্যাডিলেডে টেস্ট ম্যাচে ভারতের রেকর্ড দেখা হয়, তাহলে দেখা যাচ্ছে ১৯৯৯-এর সচিন নেতৃত্বে খেলতে যাওয়া ভারতীয় দলের চরম হার হয়েছিল। কিন্তু ভারতের পরের অস্ট্রেলিয়া সফরেই অজিদের দেশে এই মাঠেই প্রথম টেস্ট জয়ের স্বাদ পায় ভারত। ভারতীয় ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য ২০০৩ সালের বর্ডার-গাভাস্কর ট্রফির এই টেস্টে রাহুল দ্রাবিড়ের বিখ্যাত ২৩৩ এবং ৭২ রানের ইনিংস দুটি চিরস্মরণীয়। ভোলার নয় ওই টেস্টেই অজিত আগরকরের দ্বিতীয় ইনিংসের ছয় উইকেটও। এরপরে ২০০৮ সালের বিতর্কিত ‘মাঙ্কি গেট’ সিরিজ। শেষ টেস্ট এখানেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

সিডনিতে একের পর এক বিতর্কিত সিদ্ধান্ত না-হলে ড্র হওয়া অ্যাডিলেড টেস্ট অনিল কুম্বলের ভারতকে সিরিজ ১-১ রেখে দেশে ফেরাতে পারত। ২০১২ সালে ‘বুড়ো’ ভারতীয় দলকে লজ্জার হার হজম করতে হয়। ২০১৪ সালের অ্যাডিলেড টেস্ট ভারতকে দেয় নতুন টেস্ট অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে এবং তার দুরন্ত লড়াকু সেঞ্চুরি মনে রাখার মতো। ক্রিজের অন্যপ্রান্তে থাকা ক্রিকেটাররা কিছু ভুল শট আউট না-হলে প্রায় ৪৫০ রানের টার্গেটকে সহজেই তাড়া করে জিততে পারত। ২০১৮-২০১৯ ঐতিহাসিক বর্ডার-গাভাস্কর ট্রফি জয়ের প্রথম টেস্টটি এখানেই জেতে বিরাটের ভারত।

গত ২৫ বছরে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার এই মাঠে ভারত ৯টি একদিনের ম্যাচ খেলেছে যার মধ্যে ৬টি ম্যাচই জিতেছে ভারত। দুটি ম্যাচ জিতেছে অস্ট্রেলিয়া এবং একটি ম্যাচ টাই হয়েছে। এর মধ্যে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সৌরভ গাঙ্গুলির স্মরণীয় ১৪১ রানের ইনিংসটিও রয়েছে। রয়েছে ২০১২ অস্ট্রেলিয়া সফরে সিবি সিরিজে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে টাই হওয়া ম্যাচটিও। মন্থর পিচে শ্রীলঙ্কার ২৩৬ রান তাড়া করতে গিয়ে ধুঁকছিল ভারত। মহেন্দ্র সিংহ ধোনির অমূল্য ৫৮ রানের ইনিংসটি ভারতকে ম্যাচ ড্র করতে সাহায্য করেছিল। এরপরের ম্যাচটি ছিল ২০১৫ বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। প্রথম ম্যাচেই পাকিস্তানকে দুরমুশ করে বিশ্বকাপ যাত্রা শুরু করেছিল ধোনির ভারত। তালিকায় নয়া সংযোজন ২০১৯, ১৫ জানুয়ারি।

টি-২০তে মাত্র একটি ম্যাচ ভারত খেলেছে এখানে। ২০১৬ সালের ঐতিহাসিক টি-২০ সিরিজ জয়ের একটি ম্যাচ খেলা হয়েছিল অ্যাডিলেডে। এই ম্যাচে বিরাট কোহলি তাঁর আন্তর্জাতিক টি-২০ কেরিয়াররে সর্বোচ ৯০ রানের ইনিংসটি খেলেছিলেন। সিরিজে অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইট ওয়াশ করে ভারত।