ক্রাইস্টচার্চ: উত্তেজক ম্যাচে মাত্র ৫ রানে হার ময়াঙ্ক আগরওয়ালদের৷ ফলে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ‘এ’ দলের বেসরকারি ওয়ান ডে সিরিজ খোয়াতে হল ভারতকে৷ যদিও ম্যাচের বেশিরভাগ সময় দাপট বজায় ছিল ভারতেরই৷ শেষবেলায় ব্যাটসম্যানদের হঠকারিতার মাশুল দিতে হয় ভারতীয় দলকে৷

হ্যাগলি ওভালে সিরিজের তৃতীয় তথা শেষ ওয়ান ডে ম্যাচে টস জিতে নিউজিল্যান্ড-এ দলকে প্রথমে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান ভারত অধিনায়ক ময়াঙ্ক৷ কিউয়িরা একসময় মাত্র ১০৫ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়ে৷ সেখান থেকে আট নম্বর ব্যাটসম্যান টড অ্যাস্টলকে সঙ্গে নিয়ে মার্ক চাপম্যান পালটা লড়াই শুরু করেন৷ সেঞ্চুরি করেন চাপম্যান৷ হাফ-সেঞ্চুকি করেন অ্যাস্টল৷ ফলে নিউজিল্যান্ড নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ২৭০ রান তোলে৷

আরও পড়ুন: মোদীর ভাষণে ইডেন টেস্ট, প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ লক্ষ্মণের

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ভারত একদা ৬ উইকেটের বিনিময়ে ২৫৭ রান তুলে ফেলে৷ ৪৯তম ওভারে বল করতে এসে আজাজ প্যাটেল ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন৷ ৮ রানে শেষ ৪টি উইকেট হারিয়ে ভারত নিশ্চিত জেতা ম্যাচ হেরে বসে৷ ৪৯.৪ ওভারে ২৬৫ রানে অল-আউট হয়ে যায় ভারতীয়-এ দল৷

নিউজিল্যান্ডের টপ ও মিডল অর্ডার ধসে পড়ার পর চাপম্যানের শতরান নির্ভরতা দেয় কিউয়িদের৷ সপ্তম উইকেটের জুটিতে অ্যাস্টলকে নিয়ে চাপম্যান ১৩৬ রান যোগ করেন৷ অ্যাস্টল আউট হন ৬৫ বলে ৫৬ রান করে আউট হন৷ চাপম্যান ৯৮ বলে ১১০ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ ইশান পোড়েল ৬৪ রানে ৩টি উইকেট দখল করেন৷ রাহুল চাহার ৪৯ রানে ২টি উইকেট নেন৷

আরও পড়ুন: লোকেশ-শ্রেয়স যুগলবন্দিতে দুরন্ত জয় টিম ইন্ডিয়ার

ভারতের হয়ে পৃথ্বী শ ৮টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৩৮ বলে ৫৫ রান করে আউট হন৷ ঋতুরাজ গায়কোয়াড় ৪৪ রানের যোগদান রাখেন৷ ময়াঙ্ক আগরওয়াল ২৫ ও সূর্যকুমার যাদব ৫ রান করে ক্রিজ ছাড়েন৷ ইশান কিষাণ ৮৪ বলে ৭১ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ বিজয় শংকর ১৯ ও অক্ষর প্যাটেল ৩২ রানের ইনিংস খেলেন৷ ভারতের শেষ তিনজন ব্যাটসম্যান রাহুল চাহার, সন্দীপ ওয়ারিয়র ও ইশান পোড়েল নিজেদের প্রথম বলেই বোল্ড হন৷

জয়ের জন্য শেষ ২ ওভারে ভারতের দরকার ছিল ১৮ রান৷ ৪৯তম ওভারে ১১ রান তুললেও ২টি উইকেট হারিয়ে বসে ভারত৷ শেষ ওভারে ৭ রান তুললেই ম্যাচ তথা সিরিজ জিতত ভারতীয়-এ দল৷ তবে মাত্র ১ রানের বিনিময়ে শেষ ওভারে অবশিষ্ট ২টি উইকেটের পতন ঘটলে হার স্বীকার করতে হয় ময়াঙ্কদের৷

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।