ওয়ানাড় : ‘জন্মের সাক্ষী’ নার্সকে খুশিতে জড়িয়ে ধরলেন রাহুল। কেরলের ওয়ানাড় কেন্দ্র থেকে সংসদ হয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। বৃহস্পতিবার থেকে তিন দিনের সফরে নিজের কেন্দ্র পরিদর্শনে বেরিয়েছিলেন তিনি। সফরের শেষ দিনে তার সঙ্গে দেখা হয় তার জন্মের সময় উপস্থিত থাকা হাসপাতালের নার্সের। ওই মহিলাকে দেখা মাত্রই খুশিতে তাঁকে জড়িয়ে ধরেন রাহুল।

বৃহস্পতিবার থেকে নিজের কেন্দ্রে সফরে বেরিয়েছেন রাহুল। সেই সফরের শেষ দিন ছিল শনিবার। এদিনই ওয়ানাড়ের কাল্পেত্তায় এক পথসভা করেন তিনি। সেখানেই তার সঙ্গে দেখা হয়ে যায় তার জন্মের সময় উপস্থিত থাকা প্রাক্তন নার্স রাজাম্মা রাজাপ্পা-র। যিনি বর্তমানে ওয়ানাড় কেন্দ্রের ভোটার। ওই মহিলাকে দেখা মাত্রই খুশিতে তাঁকে জড়িয়ে ধরেন রাহুল।

কংগ্রেস সভাপতিকে দেখে উচ্ছ্বসিত হয়ে পড়েন সমর্থকরা। হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে তাঁকে অভিবাদন জানান তারা। প্ল্যাকার্ডে লেখা, “পাশে আছি আমরা, আইওয়াইসি (ভারতীয় যুব কংগ্রেস) তোমার নেতৃত্ব কাজ করতে চায়।”

আরও পড়ুন : ‘দাদা হওয়া ভুলে কর্মী হোন’, নেতাদের বার্তা শুভেন্দু অধিকারীর

তাঁর নিজের কেন্দ্রের মধ্যস্থ উত্তর কেরলের ৩ জেলার বিভিন্ন এলাকায় জনসভা করেন তিনি। সেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে তোপ দেগে বলেন, “মিথ্যের আশ্রয় নিয়ে নির্বাচনে জিতেছেন নরেন্দ্র মোদী।”

তাঁর দাবি, “জাতীয় স্তরে বিষের বিরুদ্ধে লড়েছে কংগ্রেস। মোদীর প্রচার ছিল মিথ্যে, বিষ, ঘৃণায় ভরা। দেশের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করার চেষ্টা চলেছে। নির্বাচনে মিথ্যের আশ্রয় নিয়েছেন মোদী।”পাশাপাশি রাহুলের আরও দাবি, “কংগ্রেস সততা, ভালবাসা দিয়ে লড়েছে।”

চলতি মাসেই জন্মদিন কংগ্রেস সভাপতির। চলতি মাসের ১৯ জুন ৪৯-এ পা দেবেন তিনি। তার আগেই নিজের কেন্দ্রে সফরে বেড়িয়ে দেখা হয়ে গেল জন্মসাক্ষীর সঙ্গে। ফলে স্বভাবতই আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন রাহুল। নিজের টুইটার অ্যাকাউনটে সেই ছবি শেয়ারও করেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ১৯৭০ সালে দিল্লির এক হাসপাতালে জন্ম হয় রাহুলের। এ বারের নির্বাচনে অমেঠির পাশাপাশি কেরলের ওয়ানাড় থেকে লড়েন রাহুল। গান্ধী পরিবারের দুর্গ হিসাবে পরিচিত অমেঠিতে বিজেপির স্মৃতি ইরানির কাছে নজিরবিহীনভাবে হেরে যান রাহুল। এই কেন্দ্র থেকে তিন বার সাংসদ হয়েছেন তিনি। নির্বাচনে কংগ্রেসের ভরাডুবি হওয়ায় পরাজয়ের দায় নিয়ে নেতৃত্ব ছাড়তে চেয়েছিলেন রাহুল গান্ধী।