হুশশশশশশ…. শব্দে একের পর এক গাড়ি এগিয়ে চলেছে সারিবদ্ধভাবে৷ এর মধ্যেই চলছে বই বিক্রির কাজ৷  পরিচিত ছবি হতে পারে আমাদের দেশে৷ কিন্তু রক্তাক্ত ইরাকের রাজধানীতে একেবারেই অভিনব ঘটনা৷

বাগদাদের  রাস্তায় আলি আল মোউসাউইকে  বই বিক্রি করতে দেখা যায়৷  বয়স তার মাত্র ২৫৷ তিনিই হলেন এই মোবাইল বুক ট্রাকের মালিক৷ যার কাছে বই-ই একমাত্র ভালোবাসার জায়গা৷

একের পর এক জঙ্গি নাশকতায় বাগদাদ অশান্ত৷ সেই অশান্তির মাঝেই শান্তির খোঁজে এই উদ্যোগ নিয়েছেন মোউসাউই৷ বাগদাদের  মোড়ে মোড়ে তিনি বই বিক্রি করেন৷   পথচলতি অনেকেই একবার হলেও তাঁর বইয়ের ট্রাকে উঁকিঝুঁকি  দিয়ে যান৷ কেউ কেউ বেশ সময়ও কাটিয়ে যান এখানে বই পড়ে৷ বাগদাদের এই অশান্তির মাঝে এই বিশেষ মোবাইল বইয়ের ট্রাকটি সাহিত্য এবং নাশকতার বিরুদ্ধে লড়াই করছে৷

আলি আল মোউসাউইয়ের জানান, এই বইয়ের বিশেষ ট্রাকটি চালানোর জন্য তাঁকে অনেক বাধাবিঘ্ন পেরোতে হয়৷ নিরাপত্তারক্ষীরা মাঝেমধ্যেই তাঁর বইয়ের ট্রাকটি পরীক্ষার জন্য দাঁড় করায়৷  তবে উজ্জ্বল ঝকঝকে বইয়ের ট্রাকের আকর্ষণে অনেকেই এখানে আসেন৷


২০০৩এর ইরাক যুদ্ধের পর বাগদাদ প্রায় ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল৷ মানুষের মধ্যে এই বিষয়ে আবারও বইয়ের প্রতি ভালোবাসা ফিরিয়ে আনতেই এমন উদ্যোগ নিয়েছেন মোউসাউই৷ তবে প্রথমেই বুকস্টোরটি শুরু করেননি তিনি৷  প্রথমে  একটি ফেসবুক পেজ ওপেন করেন৷ যেটির নাম ‘ইরাকি বুকিশ’৷ ওই পেজেই বিপুল সাড়া পাওয়ার পরই তিনি এবার শুরু করেন এই দোকানটি৷ এরপর থেকে তাঁকে আর ফিরে তাকাতে হয়নি৷

এই ধরনের একটি অভিনব উদ্যোগের পিছনে রয়েছে আরও একটি কারণ৷ তিনি মনে করেন, এমন একটি বুকস্টোর তৈরি হলে সেখানে বিভিন্ন ধরণের মানসিকতার লোক আসবে৷ এরফলে সে আরও নিত্যনতুন ধারণা পাবেন আরও অভিনব কাজ করার এবং এই বুক স্টোরটিকে আরও উন্নত করতে পারবেন তিনি৷

সম্প্রতি তিনি এই বুকস্টোর গুলিতে বই বিক্রি করারও ব্যবস্থা হয়েছে৷ এমনকি বইপত্র ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য ডেলিভারি ব্যবস্থাও রয়েছে এখানে৷ ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হচ্ছে মোবাইল বুকস্টোরটি৷ চারজন কর্মীও নিয়োগ করেছেন তিনি৷ এই দোকানের আয় আপাতত চার হাজার মার্কিন ডলার৷