স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: উত্তর ২৪ পরগনার নিমতায় ফের খুন। এক যুবককে মাথায় আঘাত করে খুনের পর মৃতদেহে জ্বালিয়ে দেওয়ার ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায় নিমতা থানার ফতুল্লাপুর গ্রামে। এই ঘটনায় নিমতা থানার পুলিশ এখনও পর্যন্ত এক অভিযুক্তকে আটক করেছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখে ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত যুবকের নাম শেখ জেসিম ওরফে শিখর। এদিকে নৃশংস এই খুনের ঘটনায় বারুদ নামে এক অভিযুক্তকে আটক করেছে নিমতা থানার পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, পুরনো শত্রুতার জেরেই এই খুন হয়ে থাকতে পারে।

যদিও এই বিষয়ে মৃতের স্ত্রী জানিয়েছেন, বুধবার ঋণের টাকা শোধ করার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায় তাঁর স্বামী। সারা রাত বাড়িতে না ফেরায় বৃহস্পতিবার সকালে তিনি নিজেই স্বামীকে খুঁজতে বের হন।

এদিকে স্বামীকে খুঁজতে খুঁজতে সে নিমতার কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়ে ফতুল্লাপুরের বালির মাঠের পাশে, একটি পাঁচিল ঘেরা জমিতে শেখ জেশিমের জুতো দেখতে পান। জুতটি যে তাঁর স্বামীর তা চিনতে পেরেই সে ঐ মাঠের ভিতরে যায়। এবং সেখানে গিয়ে শেখ জেসিমকে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন।

এরপরেই নিমতা থানায় খবর দেওয়া হয়। পরে পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কামারহাটি সাগর দত্ত হাসপাতালে নিয়ে যায়। এদিকে পুলিশ সূত্রে খবর, গত বুধবার দিন রাতে বারুদ ও মৃত যুবক এক সঙ্গে মদ্যপান করছিল। অভিযোগ, এরপরেই কোনও বচসা বা টাকাপয়সা নিয়ে দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা চলাকালীন অবস্থায় অভিযুক্ত বারুদ তাঁকে খুন করে সেখানে ফেলে দিয়ে যায়।