করোনা ভাইরাস

কলকাতা: ভোটের মুখে বাংলায় বাড়ছে সংক্রমণ(infection)৷ চিন্তা বাড়াচ্ছে মৃত্যুহারও৷ তবে বাড়ছে সুস্থতার হার৷ শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন (State Health Department) বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী,একদিনে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত (COVID-19)হয়েছেন ২১৬ জন৷ একদিন আগেও সংখ্যাটা ২০০ এর নিচে ছিল৷ সব মিলিয়ে বাংলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫ লক্ষ ৭৪ হাজার ৭১৬ জন৷

রাজ্যে একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৩ জনের৷ বৃহস্পতিবার মৃতের সংখ্যাটা ছিল ৪ জন৷ এই সংখ্যাটা কিছুদিন আগে একজনে নেমে এসেছিল৷ এই পর্যন্ত বাংলায় মোট মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ২৬৩ জনের৷

তাছাড়া চিন্তা বাড়াচ্ছে মৃত্যুহারও ৷ ২৫ ফেব্রুয়ারির তথ্য অনুযায়ী, বাংলায় মৃত্যু হার ১ দশমিক ৭৯ শতাংশ৷ এক মাসে এই সংখ্যাটা ছিল ১ দশমিক ৭৮ শতাংশ৷ যেখানে দেশে মৃত্যুহার কমছে৷ সেই তুলনায় বাংলায় মৃত্যুহার কমেনি৷

তবে পশ্চিমবঙ্গে বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীনের সংখ্যাটা কমে মাত্র ৫১৬ জন৷ হোম আইসোলেশনে ২ হাজার ৩৮৫ জন৷ আর সেফ হোমে রয়েছেন মাত্র ২ জন৷

বাংলায় গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২২৩ জন৷ বৃহস্পতিবার ছিল ২১৯জন৷ সব মিলিয়ে রাজ্যে মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লক্ষ ৬১ হাজার ১১০ জন৷ আর সুস্থতার হার বেড়ে ৯৭.৬৩ শতাংশ৷

একদিনে টেস্ট হয়েছে ২০ হাজার ৮৪ টি৷ বৃহস্পতিবার ছিল ২০ হাজার ৩৯৬ টি৷ ফলে মোট করোনা টেস্ট হয়েছে ৮৫ লক্ষের বেশি৷ তথ্য অনুযায়ী ৮৫ লক্ষ ৩ হাজার ৪১৭টি৷ ফলে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় টেস্টের সংখ্যা বেড়ে হল ৯৪,৪৮২ জন৷

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা কমে সাড়ে ৩ হাজারের নিচে৷ তথ্য অনুযায়ী,৩ হাজার ৩৪৩ জন৷ বৃহস্পতিবার ছিল ৩ হাজার ৩৫৩ জন৷ তুলনামূলক ১০ জন কম৷

এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ১০৫ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ১ টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷

বি: দ্র: – প্রতিদিন সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন থেকে যে বুলেটিন প্রকাশিত হয়,সেখানে আগের দিন সকাল ৯ টা থেকে বুলেটিন প্রকাশিত হওয়ার দিন সকাল ৯ টা পর্যন্ত তথ্য উল্লেখ করা হয়৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।