কলকাতা: শনিবার ঘোর দুর্ভোগে পড়তে পারেন দক্ষিণ-পূর্ব রেল শাখার বহু যাত্রী। শালিমার কোচ টার্মিনালে উন্নয়নের কাজের দরুন শনিবার দক্ষিণ-পূর্ব রেলওয়ে বেশ কিছু স্পেশাল ও লোকাল ট্রেন বাতিল করেছে। শুধু ট্রেন বাতিলই নয়। শালিমার কোচ টার্মিনালে উন্নয়নের কাজের জেরে বেশ কিছু ট্রেন ছাড়ার ক্ষেত্রে সময়েরও পরিবর্তন করা হয়েছে। স্বভাবতই একগুচ্ছ ট্রেন বাতিল ও ট্রেনের সময় বদলের জেরে সপ্তাহের শেষ দিনে দুর্ভোগ বাড়তে চলেছে যাত্রীদের।

শনিবার দক্ষিণ–পূর্ব রেলের শালিমার কোচ টার্মিনালে বেশ কয়েকটি কাজ চলবে। তারই জেরে শনিবার হাওড়া–ভুবনেশ্বর, হাওড়া–পুরুলিয়া ও হাওড়া–দিঘা স্পেশ্যাল ট্রেন বাতিল হয়েছে। শুধু ট্রেন বাতিল করাই নয়। একইসঙ্গে ৩৪টি আপ ও ৩৩টি ডাউন লোকাল ট্রেন বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এরই পাশাপাশি বেশ কিছু ট্রেনের সময়ও পরিবর্তন করা হয়েছে।

রেলের তরফে জানানো হয়েছে, শনিবার আহমেদাবাদ এক্সপ্রেস, আপ যশবন্তপুর, আপ এর্নাকুলাম স্পেশ্যাল, ডাউন মুম্বই মেলের সময় বদল করা হয়েছে। শনিবার খড়গপুর থেকে ছাড়বে হাওড়া–ভদ্রক স্পেশ্যাল। টাটা থেকে ছাড়বে হাওড়া–রাঁচি স্পেশ্যাল ট্রেন। এরই পাশাপাশি বেশ কয়েকটি লোকাল ট্রেন হাওড়ার পরিবর্তে বাউড়িয়া স্টেশন থেকে ছাড়বে বলে রেল সূত্রে জানা গিয়েছে। সাঁকরাইল থেকে শালিমারের মাঝে নতুন রেললাইন হবে। সাঁকরাইল ও আন্দুলের মাঝের উড়ালপুলে গার্ডার লাগানোর কাজ চলবে। এছাড়াও শালিমারের কোচ টার্মিনালের উন্নয়নে একাধিক কাজ হবে শনিবার।

এদিকে, সপ্তাহের শেষ দিনে একসঙ্গে বেশ কিছু ট্রেন বাতিল ও কিছু ট্রেনের সময় বদলের জেরে সমস্যা বাড়বে যাত্রীদের। উন্নয়নের স্বার্থেই যাত্রীদের কাছে সহযোগিতা চায় রেল। ইতিমধ্যেই শনিবারের রেলের এই ট্রেন বাতিল ও সময় পরিবর্তনের খবর পেয়ে গিয়েছেন যাত্রীরা। অনেকেই নিজেদের সুবিধা মতো স্টেশনে গিয়ে ট্রেন ধরার পরিকল্পনাও করে ফেলেছেন। একইসঙ্গে বেশ কিছু যাত্রী নিজেদের গন্তব্যে পৌঁছনোর দিনও বদল করেছেন। রেল ব্যবস্থাকে আরও বেশি মসৃণ ও স্বাচ্ছন্দ্য করতেই রেলের তরফে একাধিক পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। উন্নয়নের স্বার্থে সব যাত্রীর কাছ থেকেই সহযোগিতা চায় রেলমন্ত্রক।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।