শিলিগুড়ি: উত্তরের শিলাবৃষ্টির প্রভাবে ফসলে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতির আশঙ্কা৷ দুই দিনাজপুরে সবজি চাষে মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে বলে বলে জানা গিয়েছে৷ সবজির পাশাপাশি, ধান-গম চাষেও ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

গত শনিবার সন্ধ্যা থেকে উত্তরের বিভিন্ন জেলায় বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিপাত হয়েছে৷ গত রবিবার সকালেও বৃষ্টি হয়েছে৷ শিলাবৃষ্টির ফলে ধান ও গম চাষে ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। শিলা ও লাগাতার বৃষ্টির জেরে পটল, শশা, লাউ, কুমড়ো, বেগুন সহ একাধিক সবজি চাষের ক্ষতি হয়েছে।

জেলা কৃষি দফতর ফসলের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানার জন্য ইতিমধ্যেই ব্লকস্তর থেকে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে। জেলা কৃষি দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, রায়গঞ্জ ব্লকের প্রায় সব কয়টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় শিলাবৃষ্টির জন্য ফসলের ক্ষতি হয়েছে। হেমতাবাদ ব্লকের হেমতাবাদ ও বাঙ্গালবাড়ি, কালিয়াগঞ্জের মুস্তাফানগর, গোয়াগাঁও ও বরুণা গ্রাম পঞ্চায়েতে ফসলের ক্ষতি হয়েছে। প্রায় ১২০০ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতির আশঙ্কা তৈরি হয়েছে৷ ভুট্টা, বোরো ধান, আখ ও পাট চাষেও ক্ষতির আশঙ্কা করছে জেলা কৃষি দফতর।

গত শনিবারের শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ের জেরে নাগরাকাটা ব্লকের শুধুমাত্র লুকসান গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। শনিবার ভোরে আধ ঘণ্টার শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ে লুকসান গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ১৫০টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত। কোয়াশ, সুপারি, ঝিঙে, পটল সহ বহু সবজি নষ্ট হয়েছে। গ্রাসমোড় চা বাগানের ৩০০ হেক্টর জমির পাতা ও ডালপাতা ভেঙে গিয়েছে। যদিও, কোচবিহার আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি শিলিগুড়িতে ঝড়বৃষ্টি হয়নি। ফলে, অল্পের জন্য রক্ষ পেয়েছেন এই জেলার কৃষকরা৷