তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: মারণ ভাইরাস করোনা আতঙ্কের ব্যাপক প্রভাব পড়লো বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর যৌনপল্লীতে। ভাইরাস আক্রমণের ভয়ে ‘খদ্দেরে’র আনাগোনা কমেছে এখানে। ফলে রুটি রুজিতে টান পড়ছে যৌনকর্মীদের। আগামী দিনগুলো কিভাবে কাটবে, ভেবে পাচ্ছেন না এখানকার প্রায় ২০০ যৌনকর্মীরা।

বিশ্বজুড়ে করোনা আতঙ্কের জেরে যথেষ্ট সাবধানতা অবলম্বন করেছেন প্রাচীণ এই যৌনপল্লীর যৌনকর্মীরা। একথা জানিয়ে এক যৌনকর্মী বলেন, এই মুহূর্তে খদ্দের এক ধাক্কায় অনেকটাই কমে গেছে। ফলে এই মুহূর্তে সংসার চালানোই সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনা আতঙ্ককে দূরে সরিয়ে যারা আসছেন তাদের মাস্ক ব্যবহার ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা তারা করেছেন বলে তিনি জানান।

আরও এক যৌনকর্মী বলেন, খদ্দেরের আনাগোনা তো কমেছেই। ফলে আমরা ভীষণ সমস্যায় পড়েছি। এই অবস্থায় যতটা সম্ভব তারা সতর্ক। তিনি বলেন, যেসব মানুষ আসছেন তাদের আমরা মাস্ক ব্যবহার করতে বলছি, নিজেরাও করছি। কিন্তু এই অবস্থায় যৌনকর্মীদের জন্য অত্যাধুনিক মাস্ক ও চিকিৎসা পরিষেবা নিয়ে তাদের পাশে প্রশাসনের দাঁড়ানোর দাবি জানিয়েছেন তিনি।

দূর্বার মহিলা সমন্বয় সমিতির ফিল্ড কো-অর্ডিনেটর বন্দনা মজুমদার বলেন, অতি সতর্কতা হিসেবে ভিন রাজ্য থেকে আসা যৌনকর্মীদের এখানে আসার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। একই সঙ্গে অপরিচিত খদ্দের এলে তাকেও ফেরৎ পাঠানো হচ্ছে। এখানে করোনাভাইরাস আক্রমণ ঠেকাতে যতটা সম্ভব সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। মাস্ক ব্যবহার সহ অন্যান্য বিষয়ে সচেতনতা তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এই মারণ রোগ বিষয়ে সচেতন করতে স্বাস্থ্য দফতরের তরফে কেউ এখনও তাদের কাছে আসেননি।