তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়াঃ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণার মাত্র কয়েক ঘন্টার মধ্যেই বাঁকুড়ার ওন্দা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালকে করোনা চিকিৎসা কেন্দ্রের রুপান্তরিত করার কাজ শুরু করলো প্রশাসন। মঙ্গলবার থেকেই এই কাজ পুরোদমে শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত, সোমবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের প্রতিটি জেলায় একটি করে করোনা চিকিৎসা কেন্দ্র চালুর কথা ঘোষণা করেন।

রাজ্যের অন্যান্য জেলার পাশাপাশি ওন্দা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা পরিষেবায় কাজে লাগানোর কথা বলেন। বাঁকুড়া শহর থেকে খুব কাছে ও এই হাসপাতালে সমস্ত ধরণের পরিকাঠামো থাকায় সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজের উপর চাপ কিছুটা হলেও কমবে বলে তিনি জানিয়েছিলেন।

জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ শ্যামল সরেন এপ্রসঙ্গে বলেন, ভেন্টিলেটর সহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রী ওন্দা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালকে দেওয়া হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ মতো সব কাজ হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ১০০ র মতো বেড ওখানে তৈরি রাখা হচ্ছে। তিনি নিজে ও জেলাশাসক অরুণ প্রসাদ ওন্দা সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল পরিদর্শণে যাচ্ছেন বলেও জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ শ্যামল সরেন জানিয়েছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।