নয়াদিল্লি: ইংল্যান্ডের বিশ্বজয়ের রেশ ধরেই সূত্রপাত ঘটেছিল বিতর্কটার। লর্ডসের ফাইনালে বেন স্টোকসের রাজকীয় ইনিংসের পর আচমকাই কিংবদন্তি সচিন তেন্ডুলকরের সঙ্গে ইংরেজ অল-রাউন্ডারের তুলনা করে বসেছিল বিশ্বক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা। শুধু তুলনা করাই নয়, সচিনকে ছাপিয়ে স্টোকসকে ‘অল টাইম গ্রেট’ আখ্যা দেওয়া হয় আইসিসি’র বিশ্বকাপ ক্রিকেটের অফিসিয়াল টুইটার পেজে। ছেড়ে কথা বলেননি অনুরাগীরাও। কড়া প্রতিক্রিয়ায় আইসিসি’কে একহাত নিয়েছিলেন সচিন অনুরাগীরা।

অ্যাশেজের তৃতীয় টেস্টে বেন স্টোকসের অতিমানবিক ইনিংসের পর ফের পুরনো বিতর্ক উসকে দিল আইসিসি। বিশ্বকাপ ফাইনালের পর করা সচিন-স্টোকসের ছবিসহ টুইটটি উদ্ধৃত করে বুধবার আইসিসি ক্যাপশন হিসেবে লেখে, ‘তোমাদের আগেই বলছিলাম।’ স্বভাবিকভাবেই কিংবদন্তি সচিন রমেশ তেন্ডুলকরের সঙ্গে স্টোকসের এমন অসম তুলনায় ফের ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন ভারতের ক্রিকেট অনুরাগীরা। বিসিসিআই’কে এমন টুইটের পরিপ্রেক্ষিতে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার অনুরোধ করেছেন তারা। ক্ষুব্ধ এক অনুরাগী আইসিসি’কে উদ্দেশ্য লিখেছেন, ‘সচিন সর্বকালের সেরা। উনাকে হিসেবের বাইরে বাকিদের বিচার করা হয়।’

 

বিশ্বকাপ ফাইনালে স্টোকসের ৮৪ রানের ইনিংসের পর আইসিসি’র তরফ থেকে একই ফ্রেমে সচিন ও স্টোকসের একটি ছবি পোস্ট করে টুইটে লেখা হয়, ‘সর্বকালের সেরা ক্রিকেটার এবং সচিন তেন্ডুলকর।’ ঘটনায় ভারতীয় ক্রিকেট অনুরাগীদের চক্ষুশূল হয়ে ওঠে বিশ্বক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা। বুধবার পুনরায় বিতর্কিত সেই পোস্ট করে যেন ক্ষোভের আগুনে ঘৃতাহুতি দিল আইসিসি। দুই ক্রিকেটের কেরিয়ার পরিসংখ্যান পাশাপাশি পোস্ট করেও এর জবাব দিয়েছেন অনেকে।

 উল্লেখ্য, লিডসে অনুষ্ঠিত অ্যাশেজের তৃতীয় টেস্টে চতুর্থ ইনিংসে ৩৫৯ রান তাড়া করতে নেমে একসময় ২৮৬ রানে ৯ উইকেট খুঁইয়ে বসে ইংরেজরা। সেখান থেকে অন্তিম উইকেটে স্পিনার জ্যাক লিচকে নিয়ে অসাধ্য সাধন করেন স্টোকস। দশম উইকেটে অবিভক্ত ৭৬ রানের পার্টনারশিপ গড়েন দুই ব্যাটসম্যান। অপরাজিত ১৩৫ রান করে অ্যাশেজের ইতিহাসে ইংল্যান্ডকে অন্যতম সেরা জয় এনে দেন নিউজিল্যান্ডজাত ক্রিকেটার। সঙ্গে ১৭ রানে ১ বলে অপরাজিত থাকেন লিচ।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।