কলকাতা ২৪x৭: সাড়ে তিন দশক আগের একটি ঘটনা, যা বদলে দিয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেটের মানচিত্রকে৷ ৩৬ বছর আগে ঠিক এই দিনেটিতেই বিশ্বক্রিকেটের আসরে কপিল দেব নতুন দিশা দিয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটকে৷

আরও পড়ুন: ধাওয়ানের পর বিশ্বকাপে অনিশ্চিত ভুবনেশ্বর কুমার

১৯৮৩ সালের ১৮ জুন জিম্বাবোয়ের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের ম্যাচে ১৭৫ রানের অবিস্মরণীয় ইনিংস খেলেছিলেন কপিল দেব৷ গোটা দলকে যে বিশ্বাস জুগিয়েছিল ক্যাপ্টেন কপিলের সেই ইনিংস, সেটাকে হাতিয়ার করেই সেবার বিশ্বজয় করে দেশে ফিরেছিল ভারত৷ একথা অস্বীকার করার লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না যে, ৮৩’র বিশ্বজয়ের পরেই শুরু হয় ভারতীয় ক্রিকেটের নতুন অধ্যায়৷

টানব্রিজ ওয়েলসের নেভিল গ্রাউন্ডে জিম্বাবোয়ের বিরুদ্ধে ডু-অর-ডাই ম্যাচে টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমেছিল ভারত৷ অপ্রত্যাশিতভাবে একসময় ১৭ রানের মধ্যে ৫ উইকেট হারিয়ে বসে ভারত৷ বিষেশজ্ঞ ব্যাটসম্যান না হয়েও কপিল দেব ক্রিজে এসেই ঝড় তোলেন৷ একাই করেন ১৭৫ রান৷ ১৩৮ বলের ইনিংসে ১৬টি চার ও ৬টি ছক্কা মারেন তিনি৷

আরও পড়ুন: হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে মাঠ ছাড়লেন ভুবি, প্রথম ভারতীয় হিসেবে নজির শঙ্করের

টেল এন্ডারদের নিয়ে কপিলের সেই লড়াইই নির্ধারিত ৬০ ওভারে ভারতকে পৌঁছে দেয় ৮ উইকেটে ২৬৬ রানে৷ ম্যাচে কপিলের পরে বলার মতো রান ছিল কিরমানির ২৪ ও রজার বিনির ২২৷ মদন লাল করেছিলেন ১৭ রান৷ বাকিদের মধ্যে গাভাসকর ০, শ্রীকান্ত ০, অমরনাথ ৫, সন্দীপ পাতিল ১, যশপাল শর্মা ৯ ও রবি শাস্ত্রী ১ রান করেন৷

পালটা ব্যাট করতে নামা জিম্বাবোয়েকে ৫৭ ওভারে ২৩৫ রানে অলআউট করে দেয় ভারত৷ মদন লাল ৪২ রানে ৩টি উইকেট নেন৷ বিনি দখল করেন ৪৫ রানে ২টি উইকেট৷ ১টি করে উইকেট নেন কপিল দেব, বলবিন্দর সাঁধু ও মহিন্দর অমরনাথ৷ শাস্ত্রী ১ ওভার বল করলেও কোনও উইকেট পাননি৷ ম্যাচের সেরা হন কপিল৷ জিম্বাবোয়ের বিরুদ্ধে ৩১ রানে ম্যাচ জিতে ভারত বিশ্বজয়ের পথে অগ্রসর হয়েছিল৷

আরও পড়ুন: ব্যাটিংকে অন্যমাত্রায় নিয়ে গিয়েছে রোহিত, প্রশংসায় পঞ্চমুখ মাস্টার-ব্লাস্টার

২০১৭ সালের ঠিক এই দিনটিতেই ওভালের ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির খেতাব ঘরে তোলে পাকিস্তান৷ সেদিক থেকে ১৮ জুনের দুঃখদায়ক স্মৃতি বলা চলে এই ঘটনাকে৷