ইসলামাবাদ: পাকিস্তানের মাটিতে বারবার আক্রান্ত সংখ্যালঘু হিন্দুরা। আর তা নিয়ে বারবার সমালোচিত হয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তবে এবার নজির গড়তে পুরানো মন্দির হিন্দুদের হাতে তুলে দিল পাকিস্তানের প্রশাসন। মন্দিরটি দুশো বছরের পুরানো। বালুচিস্তানের জ়োব জেলার ওই মন্দিরটি দেশভাগের সময় থেকে বেআইনিভাবে দখল করে নেওয়া হয়েছিল। ঐতিহাসিক দিক থেকে মন্দিরটি গুরুত্ব অপরিসীম। এবার সেই মন্দিরই পাকিস্তানের সংখ্যালঘু হিন্দুদের হাতে তুলে দিয়ে এক প্রকার নজির সৃষ্টি করল পাকিস্তানের ইমরান খান সরকার।

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাশ হয়েছে ভারতে। যেখানে পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং বাংলাদেশ থেকে আসা অমুসলিমদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। বিজেপির তরফে বারবার দাবি করা হয়েছে, বাংলাদেশ, পাকিস্তানে আক্রান্ত সংখ্যালঘু হিন্দুরা। যদিও পাকিস্তান এহেন মন্তব্যের তীব্র বিরোধীতা করে এসেছে। ইমরান খানের পালটা দাবি, পাকিস্তানে হিন্দুদের মোটেই খারাপ অবস্থা নয়। যদিও এরপর একাধিকবার পাকিস্তানের মাটিতে সংখ্যালঘু হিন্দুদের আক্রান্ত হওয়ার খবর সামনে এসেছে। এই অবস্থায় মন্দির ফিরিয়ে নজির গড়ার চেষ্টা পাক প্রধানমন্ত্রীর।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, বিগত তিরিশ বছর ধরে চার কক্ষবিশিষ্ট ওই মন্দিরটিকে সরকারি স্কুল হিসেবে ব্যবহার করা হত। যদিও গত বছরেই স্কুলটিকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় । সেই থেকেই পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়েছিল মন্দিরটি। সম্প্রতি মন্দিরটর চাবি হিন্দুদের ফিরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। দীর্ঘদিন মন্দিরটি বেআইনিভাবে দখল থাকার জন্যে ক্ষমাও চেয়ে নেওয়া হয়েছে। খুব শীঘ্রই মন্দিরটির সংস্কারের কাজ শুরু হবে। পাকিস্তানের প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়েছে, আগামী দিনে বেআইনিভাবে দখল করা এরকম প্রায় শতাধিকেরও বেশি মন্দির ফিরিয়ে দেওয়া হবে হিন্দুদের হাতে।